• শিরোনাম

    গাইবান্ধায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে।

    মোঃ তাওহীদ তুষার : গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি। | ০১ সেপ্টেম্বর ২০২০


    গাইবান্ধায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে।

    গাইবান্ধায় প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা ভাইরাসে শনাক্তের সংখ্যা। প্রতিদিনই যেন নতুন নতুন রেকর্ড গড়ছে কোভিড- ১৯।

    বগত ২৪ ঘণ্টার পরীক্ষায় জেলায়  করোনা শনাক্ত হয়েছেন মোট ৫৮ জন। এ পর্যন্ত গাইবান্ধায় মোট আক্রান্ত বেড়ে ১০০৫ জন এ পৌঁছলো, তার মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের।


    মঙ্গলবার (১ সেপ্টেম্বর) বিকেল তিনটা প্রাপ্ত জেলা প্রশাসনের সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুসারে গাইবান্ধায় মোট করোনা আক্রান্ত ১০০৫ জন মানুষ। গত এক সপ্তাহে গাইবান্ধা সহ উত্তরাঞ্চলের বেশকিছু নমুনা রংপুর মেডিকেল কলেজ এর ল্যাবে জমা থাকায় তা ঢাকা প্রেরণ করা হয়। পরে ল্যাবে পরীক্ষা করা হলে জেলার সর্বাধিক আক্রান্তের এই তথ্য পাওয়া যায়।

    তবে করোনার সংক্রমণের মধ্যেই আশার আলো এর সুস্থতার সংখ্যা। সিভিল সার্জন কার্যালয়ের প্রতিবেদন অনুযায়ী এ পর্যন্ত জেলায় ৬৮৩ জন মানুষ সুস্থ হয়ে উঠেছেন ওই রোগ থেকে।


    সিভিল সার্জন কার্যালয় ও জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ ঘন্টায় নতুন আক্রান্ত ৫৮ জনের মধ্যে গোবিন্দগঞ্জে ৮ জন, সাদুল্লাপুরে ৩ জন, ফুলছড়িতে ২ জন, সাঘাটায় ৩ জন, সুন্দরগঞ্জে ৪ জন, পলাশবাড়ীতে ২ জন এবং সদর উপজেলায় ৩৬ জন রয়েছেন। এর মধ্যে ৩০ জনেই গাইবান্ধা পৌরসভার।

    জেলার ৭ উপজেলায় এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত ১০০৫ জনের মধ্যে গাইবান্ধা সদরে সর্বাধিক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ উপজেলার মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩৪০ জন। যার মধ্যে শুধু পৌর এলাকারই ২৫৯ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন মোট ১৮৩ জন।


    গাইবান্ধায় বর্তমানে করোনা আক্রান্তদের মধ্যে ৩০৮ জন রোগী বাড়িতে ও বিভিন্ন হাসপাতালে আইসোলেশনে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

    জানা গেছে, এ পর্যন্ত জেলায় মোট ১৪ জন করোনা আক্রান্ত রোগী রোগী মারা গেছে। তার মধ্যে গোবিন্দগঞ্জে ৪ জন, সদরে ৩ জন, সাদুল্লাপুরে ২ জন, পলাশবাড়ীতে ৪ জন এবং সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় আর ও এক জনের মৃত্যু হয়েছে।

    গাইবান্ধা সিভিল সার্জন ডা. এবিএম আবু হানিফ তার ফেসবুক পেজে জানান, সন্দেহ ভাজন করোনা রোগী হিসেবে যারা পরীক্ষার জন্য নমুনা জমা দিবেন তারা –
    ১. অবশ্যই হোম কোয়ারেনটাইনে থাকবেন।
    ২. পরীক্ষার ফলাফল না পাওয়া অবধি যেখানে সেখানে ঘুরাঘুরি করবেন না।
    ৩. চাকুরীজীবি অনুমতিক্রমে নিজ গৃহে কোয়ারেনটাইনে থাকবেন।
    ৪. দায়িত্বহীনের মত যেখানে সেখানে ঘুরাঘুরি করে অন্যের বিপদের কারন হবেন না।
    ৫. নমুনা পরীক্ষার ফলাফল প্রাপ্তি সাপেক্ষে চিকিৎসকের পরামর্শ মতো পরবর্তী করনীয় করুন।
    ৬. স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলুন, দায়িত্বশীল আচরণ করুন।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১