• শিরোনাম

    দৈনিক খুলনা

    দি গাংচিল ডেস্ক | ০৮ আগস্ট ২০২০


    দৈনিক খুলনা

    ঝিনাইদহে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৩ জনের মৃত্যু : নতুন করে আরও আক্রান্ত ২৩ জন

    ঝিনাইদহে করোনা উপসর্গ নিয়ে অরুণ বিশ্বাস নামের এক ব্যাক্তির মৃত্যু হয়েছে। সে পৌর এলাকার মদন মোহন পাড়ার নিমাই চন্দ্রের ছেলে। তিনি পরিবহন ব্যাবসায়ী ছিলেন। জ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্টে সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আবস্থায় বৃহস্পতিবার রাতে তিনি মারা যান। এদিকে শৈলকুপা উপজেলার কবিরপুর ইউনিয়নের মৃত লুৎফর রহমানের ছেলে বাদশা আলম, জ্বর কাশি ও বুকে ব্যাথা করোনা উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসার জন্য শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে তিনি মারা যান। মৃত ব্যক্তিদের শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ। এছাড়াও করোনা আক্রান্ত হয়ে জেলার মহেশপুর উপজেলার যাদবপুর ইউনিয়নের পারগোপালপুর গ্রামের মৃত আক্কাস আলী মন্ডলের ছেলে মোঃ ওসমান গণি।


    জেলা স্বাস্থ্য বিভিাগের দেওয়া তথ্য মতে শুক্রবার জেলায় ২৩ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তরা হলো সদর উপজেলায় ১২ জন, শৈলকুপা উপজেলায় ১ জন, কালীগঞ্জ উপজেলায় ৫ জন, হরিনাকুন্ডু উপজেলায় ৪ জন, কোটচাদপুর উপজেলায় ১ জন। এনিয়ে জেলায় মোট করোনা আক্রান্তে সংখ্যা ১ হাজার ৭৫জন। এদের মধ্যে সুস্থ্য হয়েছেন ৬ শত ১৩ জন।

    ঝিনাইদহ ইসলামিক ফাউন্ডেশন উপ-পরিচালক মোঃ আব্দুল হামিদ খান জানান, করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে বৃহস্পতিবার রাতে জেলায় মোট ৩ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এ পর্যন্ত ৩৯ জন করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মৃত ব্যক্তির লাশ দাফন করেছে ইফা গঠিত কমিটি।


    দেবহাটা উপজেলার চেয়ারম্যান করোনায় ইন্তেকাল করলেন

    প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আব্দুল গণি (৭০)। শুক্রবার ভোর রাত সাড়ে ৩ টার দিকে রাজধানীর স্পেশালাইজড হাসপাতালে লাইফ সার্পোটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।


    মৃত্যুর আগে তার নমুনা পরীক্ষায় রিপোর্ট পজিটিভ আসে বলে নিশ্চিত করেছেন তার ছেলে আব্দুর রাজ্জাক রনি। এদিকে, দেবহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাজিয়া আফরিন তার ফেসবুক ষ্টাটাসেও তিনি কোভিডে মারা গেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন।

    জানা গেছে, বিগত কিছুদিন যাবৎ জ্বরসহ করোনার উপসর্গ দেখা দিলে নিজ বাড়ীতে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন তিনি। পরবর্তীতে তার শারিরীক অবস্থার অবনতি হলে গত সোমবার (৩ আগষ্ট) উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে রাজধানীর স্পেশালাইজড হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। ওই দিনই করোনা পরীক্ষার জন্য তার নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হয়। নমুনা সংগ্রহের তিনদিন পর গতকাল বৃহষ্পতিবার তার করোনা পরীক্ষার রিপোর্টে পজিটিভ আসে। এরপর সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার ভোর রাতে তিনি মারা যান। ইতিমধ্যে তার মরদেহ নিয়ে তার পরিবারের সদস্যরা রাজধানী থেকে গ্রামের বাড়ী দেবহাটা উপজেলার চাঁদপুরের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন এবং বাদ মাগরিব তার জানাযা নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে বলে পারিবারিক সুত্র নিশ্চিত করেছে।

    আলহাজ্ব আব্দুল গণি ছিলেন, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এবং একই সাথে তিনি দীর্ঘদিন সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ন পদে দায়িত্বরত ছিলেন। পরপর টানা দু’বার তিনি দেবহাটা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এদিকে, আলহাজ্ব আব্দুল গণি’র মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও সাতক্ষীরা-৩ আসনের সাংসদ অধ্যাপক ডা. আ.ফ.ম রুহুল হক এমপি, জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তা কামাল, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক সাংসদ মুনসুর আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নজরুল ইসলামসহ জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের প্রশাসনিক ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ।

    ফকিরহাটে প্রবল বর্ষনে অর্ধশতাধিক গ্রাম্য পাকা রাস্তা চলাচলের অযোগ্য

    বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলায় প্রবল বর্ষনের কারনে শতাধিক জনবহুল সড়ক এখন জনসাধারণের চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এতে হাজার হাজার জনসাধারণ ও পথ যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। গ্রাম্য এ সড়ক গুলি দ্রুত পূনঃ সংস্কার করার জন্য স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তর সহ উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন। সরেজমিনে অনুসন্ধ্যান করে জানা গেছে, খুলনা মোংলা মহাসড়কের বাইপাস শ্যামবাগাত থেকে মাদারতলা পর্যন্ত সড়কটি দির্ঘ কয়েক মাস ধরে ভারী যানবাহন চলাচলের কারনে এ সড়কটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এই সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন বেতাগা শুভদিয়া ও গৌরম্ভা ইউনিয়নের হাজার হাজার জনসাধারন চলাচল করে থাকেন। বারবার রেল কর্তৃপক্ষকে জনসাধারণের স্বাভাবিক চলাচলের জন্য কিছু ইট বালু দেওয়ার কথা বললেও তারা তাতে কর্ণপাত করছেনা। যে কারণে সড়কটি এখন মরণ ফাঁদে পরিনত হয়েছে। এছাড়া শুকদাড়া গৌরম্ভা সড়কের বেতাগা বাজারের ইউনিয়ন পরিষদের সামনে বড়বড় গর্তের সৃষ্ঠি হয়েছে। অপরদিকে পিলজংগ ইউনিয়নের বলায়ের দোকান ভায়া পাগলা ১০রাস্তার মোড় সড়ক, কাটাখালী ভায়া টাউন নওয়াপাড়া জমিদার বাড়ী (কলেজ রোড) সড়ক, মহিষ প্রজনন ও উন্নয়ন খামার ভায়া কাঠালতলা সড়ক, বাহিরদিয়া ইউনিয়নের গাবখালী ভায়া পালেরহাট সড়ক, লখপুর ইউনিয়নের কাটাখালী ভায়া জলছত্র বটতলা সড়ক, জলছত্র বটতলা ভায়া ধনপোতা ব্রীজ সড়ক সহ বেশ কয়েকটি পাকা সড়ক চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। কিছু কিছু সড়ক প্রবল বর্ষনের কারনে উপরের পিচ উঠে ইটের খোয়া বেরিয়ে এসে এমন অবস্থার সৃষ্ঠি হয়েছে যে পায়ে হেটে চলাচল করা অসম্ভাব হয়ে পড়েছে। গ্রাম্য এ সড়ক গুলি দ্রুত পূনঃ সংস্কার করার জন্য স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তর সহ উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

    ইসলামী আন্দোলন খুলনা মহানগরের ঈদ পুনর্মিলনী

    শুক্রবার (৭ আগস্ট) সন্ধ্যা ৭ টায় পাওয়ার হাউজ মোড়স্থ আইএবি মিলানায়তনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগর কমিটির ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান নগর সভাপতি মুফতী আমানল্লাহ ও সেক্রেটারী শেখ মোঃ নাসির উদ্দিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়।

    ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সহ সভাপতি মাওঃ মোজাফ্ফার হোসাইন, মুফতী মাহবুবুর রহমান, জয়েন্ট সেক্রেটারী মাওঃ দ্বীন ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম সজীব মোল্লা, সহ সাংগঠনিক মোল্লা রবিউল ইসলাম তুষার, প্রচার সম্পাদক মোঃ তরিকুল ইসলাম কাবির, সহ প্রচার আব্দুর রশীদ, দপ্তর সম্পাদক মোঃ শরিফুল ইসলাম, সহ দপ্তর মুফতী আমিরুল ইসলাম, অর্থ সম্পাদক মুক্তিযুদ্ধা জিএম কিবরিয়া, সহ অর্থ আলহাজ্ব মোমিনুল ইসলাম, প্রশিক্ষণ সম্পাদক মুফতী ইসহাক ফরীদি, সহ প্রশিক্ষণ মাওঃ হাফিজুর রহমান, ছাত্র ও যুব বিষয়ক মাওঃ ইমরান হোসাইন, শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক ইঞ্জিনিয়ার এজাজ মানসুর, আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকেট কামাল হোসেন, কৃষি ও শ্রম বিষয়ক আলহাজ্ব আমজাদ হোসেন, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক আলহাজ্ব আব্দুস ছালাম, মহিলা ও পরিবার বিষয়ক ডাঃ মাওঃ নাসির উদ্দিন, সংখ্যালঘু বিষয়ক আলহাজ্ব আবু তাহের, নির্বাহী সদস্য মাওঃ শায়খুল ইসলাম বিন হাসান, মাওঃ সিরাজুল ইসলাম, আলহাজ্ব জাহিদুল ইসলাম, ওলামা মাশায়েখ আইম্মা পরিষদের নগর সাংগঠনিক সম্পাদক মাওঃ আলী আহমদ, খানজাহান আলী থানার সেক্রেটারী মোঃ কামরুল ইসলাম, খালিশপুর থানার সভাপতি হাফেজ আব্দুল লতিফ, দৌলতপুর থানার সেক্রেটারী হাফেজ খায়রুল ইসলাম, লবণচরা থানার জয়েন্ট সেক্রেটারী মোঃ শফিউল ইসলাম, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলনের নগর সাধারণ সম্পাদক গাজী মুরাদ হোসেন, যুব আন্দোলনের নগর সভাপতি আলহাজ্ব আবুল কাশেম, ইশা ছাত্র আন্দোলনের নগর সভাপতি এইচএম খালিদ সাইফল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক মোঃ মইনুদ্দিন প্রমুখ।

    সভায় ভারতের বাবরী মসজিদের জায়গায় রাম মন্দির নির্মাণ করার ভিত্তিপ্রস্তর করায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং লেবাননে শতাধিক হতাহতের ঘটনায় শোক প্রকাশ করেন।

    জেলা শ্রমিক লীগ সভাপতির মায়ের মৃত্যুতে আ’লীগ, মন্ত্রী, মেয়র ও সংসদ সদস্যদের শোক

    খুলনা জেলা শ্রমিক লীগ সভাপতি বিএম জাফরের মা মোছা: ছায়রা খাতুন (১০২) ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহে …………… রাজেউন)। তিনি বার্ধক্য জনিত কারনে শুক্রবার প্রথম প্রহরে অর্থাৎ রাত ১টায় গোপালগঞ্জের বিজয়পাশা গ্রামে নিজ বাসভবনে মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তিনি ৭ ছেলে নাতি নাতনি, আত্মীয় স্বজন ও অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। মরহুমার নামাজে বাদ জুম্মা বিজয়পাশা জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়। জানাযা শেষে মরহুমাকে গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

    এদিকে ছায়রা খাতুনের মৃত্যুতে গভীর শোক, শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা ও মরহুমার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিবৃতি দিয়েছেন, শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এমপি, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক, খুলনা জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ হারুনুর রশীদ, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এম ডি এ বাবুল রানা, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত কুমার অধিকারী সহ আওয়ামী লীগের সকল স্তরের নেতৃবৃন্দ।

    ॥ শেখ হেলাল উদ্দিন এমপি’র শোক ॥

    শ্রমিক নেতা বিএম জাফরের মা মোছা: ছায়েরা খাতুন-এর মৃত্যুতে গভীর শোক, শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা ও মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিবৃতি দিয়েছেন, বাগেরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দিন।

    ॥ সেখ সালাহ্ উদ্দিন জুয়েল এমপি’র শোক ॥

    শ্রমিক নেতা বিএম জাফরের মা মোছা: ছায়েরা খাতুন-এর মৃত্যুতে গভীর শোক, শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা ও মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিবৃতি দিয়েছেন, খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য সেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল।

    ॥ এস এম কামাল হোসেনের শোক ॥

    শ্রমিক নেতা বিএম জাফরের মা মোছা: ছায়েরা খাতুন-এর মৃত্যুতে গভীর শোক, শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা ও মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিবৃতি দিয়েছেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কার্যনির্বাহী সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন।

    মহেশপুরে ফেন্সিডিলসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী আটক, প্রাইভেটকার জব্দ

    ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার দত্তনগর এলাকা থেকে ফেন্সিডিলসহ ২ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে তাদের আটক করা হয়। এসময় জব্দ করা হয়েছে ফেন্সিডিল বহনকারী একটি প্রাইভেট কার। আটককৃতরা হলো- মহেশপুর উপজেলার শ্যামকুড় গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে আশরাফুল ইসলাম (৩১) ও ভাবদিয়া খেজুর বাগানপাড়ার তৈয়ব আলীর ছেলে নাজমুল হোসেন (২৫)।

    ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কোটচাঁদপুর সার্কেল) মুহাইমিনুল ইসলাম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তারা জানতে পারে মহেশপুর সীমান্ত এলাকা দিয়ে প্রাইভেটকারে ফেন্সিডিল পাচার হচ্ছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালান তিনি। এসময় দত্তনগর চার রাস্তার মোড় এলাকায় চেকপোস্ট বসিয়ে প্রাইভেট কারটিতে তল্লাসী করলে উদ্ধার করা হয় ১৯৮ বোতল ফেন্সিডিল। আটক করা হয় ওই দুই জনকে। এ ঘটনায় মহেশপুর থানায় মামলা হয়েছে।

    ১৫ হাজার অসচ্ছল পরিবারের মাঝে নগদ অর্থ ও কোরবানীর মাংস বিতরণ

    ঝিনাইদহে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও অসচ্ছল প্রায় ১৫ হাজার পরিবারের মাঝে কোরবানীর মাংস ও নগদ অর্থ বিতরণ করেছে জাহেদী ফাউন্ডেশন। জাহেদী ফাউন্ডেশনের ঝিনাইদহ জেলা সমন্বয়ক তবিবুর রহমান লাবু জানান, এবছরও জেলার বিভিন্ন গ্রামের ১৫ হাজার অস্বছল পরিবারকে কোরবানীর মাংস ও নগদ টাকা দিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটি। ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বেড়গোপিনাথপুর গ্রামের কিংশুক ইটভাটায় ঈদের পর দিন থেকে ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক নাসের শাহরিয়ার জাহেদী মহুলের সার্বিক তত্বাবধানে এই মাংস বিতরণের কার্যক্রম শুরু হয়। এছাড়া পৌর এলাকার বিভিন্ন পাড়ায় ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের মাধ্যমেও জাহেদী ফাউন্ডেশনের এই কোরবানীর মাংস বিতরণ করা হয়। মাংস বিতরণ অনুষ্ঠানে তুরস্কের প্রতিনিধি মিঃ ফাতি এলমালি, মিঃ তাহাসিন ইয়াজান ও কাইয়ূম শাহরিয়ার জাহেদী হিজলসহ ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। অসচ্ছল পরিবারের সদস্য তহমিনা খাতুন জানান, তিনি প্রতি বছর দুই কেজি করে গরুর মাংস ও নগদ একশ টাকা পেয়ে থাকেন। এছাড়া পবিত্র ঈদুল ফিতরেও চাল, তেল ও ডালসহ বিভিন্ন সামগ্রী পেয়েছেন। সাধুহাটী ইউনিয়নের বাসিন্দা আব্দুল আলীম ও ইহছানুল হক জানান, এ বছর তারা দেড় কেজি গরুর মাংস ও নগদ একশ টাকা পেয়েছেন। সুরাট ইউনিয়নের লিয়াকত আলী ও হরিনাকুন্ডুর ভালকি গ্রামের ট্যাঙ্গর আলী, শহরের কলাবাগান পাড়ার রান্নু শাহ ও মাজেদা খাতুন জানান, তারা এবারের ঈদুল আযহায় মাংস ও নগদ টাকা পেয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে বেজায় খুশি হয়ে ঈদ আনন্দ উপভোগ করেছেন। কার্ডপ্রাপ্তরা জানান, বছরের পর বছর জাহেদী ফাউন্ডেশন ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে হাজার হাজার পরিবারকে সহায়তা করে থাকেন। এছাড়াও করোনা শুরু থেকেই জাহেদী ফাউন্ডেশন ঝিনাইদহ জেলার অসহায় মানুষসহ দেশের বিভিন্ন জেলার মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রেখেছেন। পাশাপাশি ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল সহ স্বাস্থ্য বিভাগের নিকট রেডিয়েন্ট ফার্মাসিউটিক্যালস্ লিমিটেডের পক্ষ থেকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে। শত শত কোটি কোটি টাকা ব্যায়ে স্কুল, মাদ্রাসা, মসজিদ, খেলাধুলা ও স্বাস্থ্যসেবা উন্নয়নে অসংখ্য প্রতিষ্ঠান ও ব্যাক্তির মাঝে জাহেদী ফাউন্ডেশন নীরবে নিভৃতে সেবামূলক কর্মকান্ড অব্যাহত রেখেছেন।

    পাইকগাছায় বাঁধ ভেঙ্গে ৩টি গ্রাম প্লাবিত : আমন ধানের বীজতলা সহ ফসলের ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি

    পাইকগাছার দেলুটি ইউনিয়নের চক্রিবক্রি বদ্ধ জলমহলের বাঁধ ভেঙ্গে ৩টি গ্রাম প্লাবিত। ধানের বীজতলা সহ ফসলের ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি। স্থানীয় চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধ মেরামত করে প্লাবিত এলাকা রক্ষার চেষ্টা।

    উপজেলার দ্বীপ বেষ্টিত ৪নং দেলুটি ইউনিয়ন গত ঘুর্ণিঝড় আম্পানে শিবসা নদীর গেওয়াবুনিয়া ও কালিনগরের ওয়াপদার বাঁধ ভেঙ্গে ব্যাপক এলাকা প্লাবিত হয়। যার ক্ষয়-ক্ষতির রেশ কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই বুধবার দুপুরে জোয়ারের পানির চাপে চক্রিবক্রি বদ্ধ জলমহলের ক্ষতিগ্রস্থ বাঁধ ভেঙ্গে গেওয়াবুনিয়া, পারমধুখালী ও চক্রিবক্রির বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। যাতে আমন ধানের বীজতলা, মৎস্য ঘের, ফসলের ক্ষেত প্লাবিত হয়ে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ঘর-বাড়ি। পানি বন্ধি হয়ে পড়েছে শতশত পরিবার। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রিপন কুমার মন্ডল জানান, খুলনার জনৈক আনাম চক্রিবক্রির ৩৭ একর জলমহলটিতে মাছ চাষ করে আসছে। অথচ খালের উত্তর ও দক্ষিণপাশে দুটি বাঁধ মেরামত না করায় বাঁধটি ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়ে। ফলে জোয়ারের পানির চাপে উত্তরপাশের বাঁধ ভেঙ্গে ৩টি গ্রাম প্লাবিত হয়। শুক্রবার সকালে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রিপন কুমার মন্ডলের নেতৃত্বে স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধটি মেরামত করলেও বাঁধটি ঝুকির মধ্যে রয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী বলেন, জলমহলটির ইজারা বাতিল করা হয়েছে। ভাঙ্গন কবলিত এলাকার রিপোর্ট প্রদানের জন্য কানুনগোকে পাঠানো হয়েছে। টেকসই বাঁধ মেরামতের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

    পাইকগাছায় ১ কেজি গাঁজা সহ ২ মাদক বিক্রেতা আটক

    পাইকগাছায় ১ কেজি গাঁজা সহ দু’মাদক মাদক বিক্রেতাকে আটক করেছে থানাপুলিশ। আটককৃতদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করেছে। এ ঘটনায় থানায় মাদকদ্রব্য আইনে মামলা হয়েছে।

    মামলা সূত্রে জানা যায়, পাইকগাছা থানাপুলিশ মাদকদ্রব্য উদ্ধার অভিযানের অংশ হিসেবে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পাইকগাছা থানার সেকেন্ড অফিসার নিমাই চন্দ্র কুন্ডুর নেতৃত্বে এএসআই রোকন, জিল্লুর, ইমরান ও আব্দুল জলিল অভিযান পরিচালনা করেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে রাড়–লী ইউনিয়নের দাসপাড়া পদ্মপুকুর মন্দিরের উত্তরপাশে কালিপদ দাসের বাড়ীর সামনে রাস্তার উপর থেকে সাতক্ষীরার আগড়দাড়ি গ্রামের মঈনুদ্দীন মোল্লার ছেলে মাহফুজ মোল্লা (২৭) ও রুহুল আমিনের ছেলে কামরুজ্জামান (২৬) কে আটক করে। তাদের স্বীকারোক্তি মতে মাহফুজের কমর থেকে ৬শ গ্রাম গাঁজা এবং কামরুজ্জামানের কমর থেকে ৪শ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করে। ওসি এজাজ শফী জানান, মাদক আইনে তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

    ঝিনাইদহের মাঠে বারি পেয়াজ প্রদর্শণী প্লটে ফলেছে লালতীর!

    সরকার যখন কৃষিখাতে বরাদ্দ বৃদ্ধি, কৃষকদের প্রনোদনা প্রদান এবং প্রধানতম রাসায়নিক সার ডাই এমোনিয়াম ফনসফেট (ডিএপি)-র দাম কমিয়ে কৃষিখাতকে স্বয়ম্ভরতার দিকে নিয়ে যাচ্ছে, ঠিক তখনই কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ছত্রছায়ায় মাঠপর্যায়ে কর্মরত কর্মচারিরা বীজের জাত পাল্টে একটি বেসরকারি বীজ সরবরাহকারি কোম্পাণির বীজ মাঠেঁ সরবরাহ করছে গবেষণার বীজ হিসাবে। ৬ মাসেরও বেশি সময় অতিক্রান্ত হলেও বীজ পরিবর্তণকারি ওই মাঠকর্মীর বিরুদ্ধে কোন কার্যকর ব্যবস্থা নেয়নি ওই অধিদপ্তর। ফলে পরবর্তীতে এধরনের কাজ সরকারের গবেষণা কার্যক্রমের জন্য মারাতœক হুমকি হয়ে দাঁড়াতে পারে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

    জানা যায়, দেশীয় উন্নতমানের জাত প্রসারের জন্য বারী-১ (তাহেরপুরী) পেঁয়াজ বরাদ্দ হলেও প্রদর্শনীপ্লটে উৎপাদন হয়েছে লাল তীর পেঁয়াজ। বিষয়টি জানাজানি হলে এ নিয়ে এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। সরকারের বীজ উৎপাদন গবেষণাকে বিতর্কিত করতেই বারী ১-র বদলে লালতীর বীজ সরবরাহ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

    এবাপারে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের শৈলকুপা উপজেলা, ঝিনাইদহ জেলা বা যশোরস্থ অতিরিক্ত পরিচালককে ব্যক্তিগত ও ফোনের মাধ্যমে অবহিত করা হলে উপজেলা কৃষি অফিসের পাল্টাপাল্টি বক্তব্য পাওয়া যায় । সংশ্লিষ্ট উপজেলা কর্মকর্তার সাথে যোগসাজস করেই প্রদর্শণি প্লটে এমন প্রতারণা করা হয়েছে বলে মনে করছেন এলাকার সচেতনমহল।

    উল্লেখ্য, শৈলকুপা উপজেলার হাকিমপুর ইউনিয়নের সাধুহাটি গ্রামের মাঠে উন্নত বীজ উৎপাদনের লক্ষ্যে গত অর্থবছরে কৃষি অফিস ১ একর জমিতে বারী পেঁয়াজ-১ প্রদর্শনী প্লট তৈরি করে। চাষী মনিরুল ইসলাম জানান, এসএএও কনোজ কুমার তাকে চাষাবাদে নানাভাবে সহযোগিতা করার আশ^াস দিয়ে বারী পেঁয়াজ-১ বীজ উৎপাদনে উৎসাহিত করেন। কিন্তু সেসময় তথ্য গোঁপন করে বারী পেঁয়াজ-১ এর পরিবর্তে ৩৫ মন লালতীরের বীজ সরবরাহ করেন উক্ত কর্মকর্তা।

    নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক সূত্রে জানা যায়, বারী পেঁয়াজ-১ এর প্রদর্শনী প্লট করে কৃষি বিভাগের একান্ত নজরে আসতে চেয়েছিল কনোজ কুমার। কিন্তুু চাষী মনিরুল ইসলাম বারী পেঁয়াজ-১ প্লট তৈরিতে আগ্রহ না দেখালে তাকে ভুলভাল বুঝিয়ে প্লটের জমি নির্দিষ্ট করে লালতীরের বীজ লাগিয়ে দেওয়া হয়। উক্ত জমিতে বারী পেঁয়াজ-১ এর সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে কৃষি বিভাগের চোখে ধূলা দেয় কনোজ কুমার। এসএএও কনোজ কুমার লালতীর (প্রাঃ) কোম্পানীর কাছ থেকে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হওয়ার জন্য গোঁপনে বীজ বদলে দিতে পারে বলে সন্দেহ উঠেছে।

    উক্ত প্রদর্শনী প্লট উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নজরে নিয়ে আসতে সাধুহাটি এলাকাবাসীর নিয়ে চাষীপর্যায়ে একটি আলোচনা অনুষ্ঠানও সম্পন্ন হয়েছে। সেসময় বীজপ্লটের বাড়ন্ত গাছ দেখলেও কর্মকর্তাগণ লালতীরের বিষয়টি অনুধাবন করেননি, দিনে দিনে বিষয়টি প্রকাশ পায় এবং বিভিন্ন পত্রপত্রিকা সহ অনলাইন ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফলাও করে প্রচার হয়।

    একপর্যায়ে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার সুযোগে অফিসকার্য সীমিত হওয়ার ইস্যুকে কাজে লাগিয়ে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ ম্যানেজ করে ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার পায়তারা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সাধুহাটি গ্রামের চাষী বাচ্চু মন্ডল জানান, প্রদর্শনী প্লটে লাল তীরের বীজ আবাদ হয়েছে সবাই জানে তবে কি কারণে বারী-১ এর সাইনবোর্ড তা সাধারণ চাষীদের বোধগম্য নয়। বিল্লাল সেখ নামে অন্য চাষী বলেন তারা ভেবেছেন হয়তো লালতীরের বৈজ্ঞানিক নাম বারী পেঁয়াজ-১ সে কারণে বিষয়টি কেউ আমলে নেয়নি।

    একই এলাকার চাষী নজরুল ইসলাম প্রশ্ন রেখে বলেন, আবাদ হয়েছে লালতীর বীজ অথচ কর্মকর্তাগণ বারী-১ (তাহেরপুরী) পেঁয়াজ বীজ ক্রয়ে উৎসাহ দেওয়ার নেপথ্য কি ? অন্যান্য চাষীরা জানান, উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা কনোজ কুমার তথ্য গোপন করে চাষীকে ভুলভাল বুঝিয়ে সরকারের বীজ উৎপাদন গবেষণাকে বিতর্কিত করতেই হয়তো প্রাইভেট কোম্পানীর বীজে উৎপাদনে সহযোগিতা করছেন।

    এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট মাঠকর্মী (এসএএও) কনোজ কুমার জানান, অফিস থেকে সরবরাকৃত বীজই কৃষক মনিরুল ইসলামের প্লটে রোপন করা হয়েছিল। তবে কিভাবে উক্ত প্লটে লালতীর উৎপাদন হয়েছে সে বিষয়টি এড়িয়ে যান।

    উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সঞ্জয় কুমার কুন্ডু জানান, বীজ উৎপাদন, সংগ্রহ, সংরক্ষণ কৃষি বিভাগের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কোন ব্যক্তির স্থুল কর্মকান্ডের জন্য সরকারের কৃষি বিভাগের বীজ গবেষণাগার বির্তকিত হবে এমন দায়ভার অফিস বহন করবেনা। এক্ষেত্রে কোন অনিয়ম হলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনী ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেওয়া হলেও শেষমেষ কোন তদন্ত তিনি বা তার উর্ধতন কর্তৃপক্ষ ৬ মাসেও কনেননি। উল্লেখ্য, বর্তমাণের উপজেলা কৃষি অফিসারের সময়ে শৈলকুপা পৌর এলাকার একটি প্রদর্শণি প্লটের ধানবীজ পাল্টে হাইব্রিড ধানের চাষ করা হয়।

    শৈলকুপা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সনজয় কুমার কুন্ডু, ঝিনাইদহ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক কৃপাংশু শেখর বিশ্বাস এবং যশোরস্থ অঞ্চলিক অফিসের অতিরিক্ত পরিচালক পার্থপ্রতীম সাহাকে তথপ্রদান ও সংবাদ মাধ্যমে বারী পেঁয়াজ-১ এর পরিবতে প্রদর্শনী প্লটে লাল তীরের বীজ আবাদ বিষয়ে অবগত করা হলে তারা বিষয়টি দেখব, দেখব করে আজও দেখেননি। ফলে বড় ধরণের এ দুর্নীতি ধামাচাপা পড়ে যাচ্ছে। আগামী পেয়াজ মৌসুমে এ অঞ্চলে বারীপেয়াজ-১ চাষে আগ্রহী চাষীরা অঅবারও বীজ প্রতারণার শিকার হতে পারেন বলে আশংকা করা হচ্ছে। বীজ গবেষণার সাথে ভয়ঙ্কর এ প্রতারণার যথাযথ তদন্তসহ উক্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন শৈলকুপার সুধীজন ও চাষীরা।

    ঝিনাইদহ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃপাংশু শেখর বিশ্বাস জানান, বিষয়টি সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্তৃপক্ষ তদন্ত কমিটির মাধ্যমে তদন্ত প্রক্রিয়া শেষ করেছেন। যে কোন সময় তদন্ত রিপোর্ট জানা যাবে।

    যশোরে মহিলা বাস যাত্রীর স্বর্ণের চেইন চুরি চার নারী চোর গ্রেফতার

    যাত্রী সেজে বাসের মধ্যে যাত্রীর গলা থেকে স্বর্ণের চেইন কৌশলে ছেড়ে নিয়ে পালাবার কালে বাস শ্রমিক ও যাত্রীদের সহায়তায় চার নারী চোরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এরা হচ্ছে, হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলার বাঘাসুরা গ্রামের শানু মিয়ার স্ত্রী মোছাঃ রিনা খাতুন, ব্রাম্মানবাড়িয়া জেলার নাছিরনগর উপজেলার ধরমন্ডল গ্রামের মুক্তাইলের স্ত্রী জামিলা বেগম,একই গ্রামের আছির আলীর স্ত্রী মোছাঃ শাফিয়া বেগম ও হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলার বাঘাসুরা গ্রামের সেলিমের স্ত্রী মোছাঃ আকলিমা খাতুন। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে যশোর কোতয়ালি মডেল থানায় বৃহস্পতিবার বিকেলে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলা নং ১৬ তারিখঃ ৬/০৮/২০ ইং ধারা ৩৭৯/৪১১/৩৪ পেনাল কোড।

    যশোর সদর উপজেলার মামড়া খোলা (চাড়া ভিটা) এলাকার হুমায়ন কবিরের স্ত্রী মোছা হালিমা খাতুন বাদি হয়ে দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন, বৃহস্পতিবার ৬ আগষ্ট বেলা ১১ টায় তিনি ঝিকরগাছা হতে যশোর নতুন টার্মিনালের উদ্দেশ্যে বাসে ওঠে। বাসটি দুপুর আনুমানিক ১২ টায় যশোর চাঁচড়া চেকপোষ্ট এলাকায় পৌছালে হঠাৎ হালিমা খাতুন বুঝতে পারেন তার গলায় থাকা ৯ আনা ওজনের স্বর্নের চেইন নাই। পরে তিনি গলায় হাত দিয়ে স্বর্ণের চেইন না থাকা নিশ্চিত হয়ে দেখেন উক্ত চার নারী আনাগোনা করছে। তিনি উক্ত নারীদের সন্দেহে করে চিৎকার দিয়ে বাসের শ্রমিকদের সহায়তায় উক্ত চার নারীদের বাস থেকে নামায়। পরবর্তীতে চাঁচড়া ফাঁড়ির এসআই মফিজুর রহমান টহল ডিউটি অবস্থায় খবর পেয়ে উক্ত স্থানে উপস্থিত হন। সেখানে উক্ত নারী চক্রের মধ্যে রিনা খাতুনের কাছে থাকা ব্যাগ তল্লাশী চালিয়ে চুরি যাওয়া স্বর্ণের চেইন উদ্ধার হয়। পরে উক্ত চার নারী চোরকে গ্রেফতার পূর্বক কোতয়ালি মডেল থানায় এনে বাদির এজাহারের বুনিয়াদে শুক্রবার সকালে আদালতে চালান দেওয়া হয়।

    যশোর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অর্থ অপচয়ে অনিয়মের অভিযোগ!

    কোন অদৃশ্য ক্ষমতায় যশোর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোল্লা আমির হোসেন একক সিদ্ধান্তে একের পর এক কমিটির কাউকে তোয়াক্কা না করে যা ইচ্ছে তাই করে চলেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। বিসিএস (সাধারন শিক্ষা) ক্যাডারের চাকুরি থেকে ইস্তফা দিয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করে ১ বছর ৬ মাস চাকুরী করার পর আবারও বিসিএস ক্যাডারের চাকরিতে ফিরে আসা যশোর শিক্ষা বোর্ডের বর্তমান চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোল্লা আমির হোসেন এর ক্ষমতার উৎস কোথায় ? শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের অধীনে এ দপ্তরের পাহাড় সমান অনিয়ম দেখার কি কেউ নাই এমন প্রশ্ন তুলেছেন খোদ বোর্ড কমিটির সাথে সংশ্লিষ্টরা।

    বোর্ডের নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো দাবি করেছেন, অনলাইন সফটওয়্যার তৈরি করে কোটি টাকা সাশ্রয় করার কথা বলে লাখ লাখ টাকা আত্মসাতের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছেন যশোর বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসার ড. মোল্লা আমির হোসেন। তিনি অত্র বোর্ডে চলতি বছরের প্রথম দিকে যোগদানের পর থেকে অহেতুক ভাবে বোর্ডের অর্থ ব্যয় করে নিজের মনগড়া কাজ শুরু করেছেন। যে কাজের বাস্তবে কোনো সুফল আসছেনা। তিনি এসব করে একের পর এক অর্থ হাতানোর পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে চলেছেন। ইতোমধ্যে বোর্ডের অর্থ অপচয় করতে কৌশল হিসেবে তিনি বোর্ডের অধীনে বিভিন্ন স্কুল কলেজে তার উদ্যোগ নেওয়া অনলাইনে পরীক্ষার ফলাফল তৈরি সংক্রান্ত সফটওয়্যারের কাজে ব্যবহার করতে স্ক্যানার কেনার জন্যে বোর্ডের ৮০ লাখ টাকার চেক বিতরণ করেছেন। স্কুল কলেজ প্রতি ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। সূত্রগুলো বলেছেন, অত্র বোর্ডে প্রোগ্রামার এবং সফটওয়্যার ডেভেলপার থাকা সত্ত্বেও বাইরের কোম্পানিকে বিপুল পরিমাণ অর্থ দিয়ে অনলাইন সফটওয়্যার তৈরি চুক্তি করতে যাওয়ার উদ্দেশ্য কী এমন প্রশ্ন কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের। খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, আজ পর্যন্ত বাংলাদেশের কোনো শিক্ষাবোর্ড এখনো পর্যন্ত এ ধরনের সফটওয়্যার ব্যবহার করেনি। সফটওয়্যারটি পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল তৈরির কাজে ব্যবহার হওয়ায় রীতিমতো ঝুঁকি রয়েছে বলে শিক্ষাবোর্ডের সাবেক একজন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক দাবি করেছেন। এ ব্যাপারে নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি আরো বলেন, সাইবার ক্রাইমের মাধ্যমে পরীক্ষার ফলাফল এদিক-সেদিক করা সম্ভব। কেবল তাই না যেহেতু বোর্ডের বাইরের লোক দিয়ে সফটওয়্যারের কাজ করানো হচ্ছে তাই মোটা অংঙ্কের টাকার বিনিময়ে ফলাফল জালিয়াতি হওয়ারও বড় ধরনের আশঙ্কা রয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রথমে একটি কেন্দ্রের পরীক্ষার ডাটা সংগ্রহ করে পাইলট প্রকল্পের মাধ্যমে প্রোসেস করে অভিজ্ঞ সফটওয়্যার ডেভেলপার দিয়ে যাচাই বাছাই করে সিদ্ধান্ত না নিয়ে বোর্ডেও চেয়ারম্যান প্রফেসার ড. মোল্লা আমির হোসেন কমিটির কাউকে তোয়াক্কা না করে নিজে লাভবান হওয়ার আশায় একক সিদ্ধান্তে ৮০ লাখ টাকা স্ক্যানার কিনতে সরকারি টাকা অপচয়ের শামিল। এ ধরনের কর্মকান্ড পরীক্ষা বিভাগের থাকলেও চেয়ারম্যান পরীক্ষা নিয়ন্ত্রককে নাম মাত্র সদস্য বানিয়ে নিজেই সবকিছু করছেন।

    এ ব্যাপারে কম্পিউটার হার্ডওয়্যার ইঞ্জিনিয়াররা জানিয়েছেন, ৩০-৪০ হাজার টাকা মূল্যের যে স্ক্যানার বাজারে রয়েছে তা দিয়ে পরীক্ষার ডাটা দীর্ঘ সময় ধরে প্রোসেসের কাজ করা সম্ভব না। কারণ এ ধরনের স্ক্যানারে একটি বা দু’টি পরীক্ষার ডাটা স্ক্যান করার পর অকেজো হয়ে পড়বে। তখন আবার নতুন স্ক্যানার কিনতে হবে। এই ধরনের কাজের জন্যে আরও উন্নতমানের স্ক্যানার প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন হার্ডওয়্যার ইঞ্জিনিয়াররা।

    কর্মকর্তারা আরো বলেছেন, অত্র বোর্ডের চেয়ারম্যান যে সফটওয়্যার তৈরি করার চেষ্টা চালাচ্ছেন সেই একই সফটওয়্যার বোর্ডের নিজস্ব সফটওয়্যার ডেভেলপাররা তৈরি এবং রক্ষণাবেক্ষণ করতে সক্ষম। অথচ চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোল্লা আমির হোসেন মোটা অঙ্কের অর্থ আত্মসাৎ করতে এমন উদ্যোগ নিচ্ছেন। বোর্ডেও সাবেক ও বর্তমান অনেক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ নার করার শর্তে জানিয়েছেন, বর্তমান চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোল্লা আমির হোসেন ইতিপূর্বে বোর্ডে সচিব থাকা অবস্থায় কোটি কোটি টাকার দুর্নীতি করেন। যা সেই সময় বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছিল। সেই মোল্লা আমির হোসেন তার বিভিন্ন অপকর্ম গোপন করে তদবিরের মাধ্যমে পদোন্নতি নিয়ে পুনরায় যশোর বোর্ডে চেয়ারম্যান পদে আসলেন। তার আসা এখন বর্তমান কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদেও মধ্যে প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে ঘুরপাক খাচ্চে। তাছাড়া আরো জানা যাচ্ছে মোল্লা আমির হোসেন অনেক ক্ষমতা রাখেন তার বিষয়ে কেউ মুখ খুললে বা তার কাজে বাধা সূষ্টি করলে চাকুরীচুতি ভয় দেখান । মোল্লা আমির হোসেন এর এই ক্ষমতার উংস সম্পর্কে সবার অজানা। এ ব্যাপারে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর মধাব চন্দ্র রুদ্র বলেছেন সফটওয়্যারের বিষয়ে বোর্ডের ইনোভেশন টিমের সাথে বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে, শেষ পর্যন্ত কী হয় সেটিই দেখার বিষয়- । বোর্ডের সচিব প্রফেসর আলী আর রেজা সাংবাদিকদের বলেন, সরাসরি এসে কথা বললে ভালো হয়। এ ব্যাপারে জানতে বোর্ড চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোল্লা আমীর হোসেনকে ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেননি। যার ফলে তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

    যশোরে কোভিড-১৯ নতুন করে ৭৭জন আক্রান্ত ও মৃত্যু ১ মোট আক্রান্ত ২০৯২

    কোভিড-১৯ ভাইরাসে ২৪ ঘন্টায় যশোরে নতুন করে ৭৭ জন আক্রান্ত হয়েছে। এ সময় নতুন করে আরো এক জনের মৃত্যুর খবর জানিয়েছেন যশোরের স্বাস্থ্য বিভাগ। মৃত ব্যক্তির নাম আমিরুজ্জামান (৪৩)। তিনি যশোরের চৌগাছা উপজেলার বিশ^াস পাড়ার বাসিন্দা। ৪ আগষ্ট আমিরুজ্জামানের শরীর থেকে নমুনা নিয়ে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ে পাঠানো হলে ৬ আগষ্ট বৃহস্পতিবার রাতে তার করোনা পজিটিভ আসে। শুক্রবার সকালে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের জেনোম সেন্টার থেকে ১৬৮ টি রিপোর্ট প্ররেণ করেন। এর মধ্যে ৭৭টি করোনা ভাইরাস পজিটিভ। যশোরের সিভিল সার্জন ডাক্তার শেখ আবু শাহীন এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এ যাবত মোট আক্রান্তর সংখ্যা ২০৯২ জন । সুস্থ্য হয়েছেন ১১৯৫জন। নতুন একজন মৃত্যু নিয়ে যশোর জেলায় মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়ালো ৩০ জন।

    যশোরের সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে আরো জানাগেছে,শুক্রবার যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয় থেকে ১৬৬টি নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট আসে। এর মধ্যে যশোর জেলায় ৭৬জন কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়। এর মধ্যে যশোর সদর উপজেলায় ৪২জন,কেশবপুর উপজেলায় ১৫জন, মণিরামপুরে ৭জন,ঝিকরগাছায় ৬জন ,শার্শায় ৪জন, চৌগাছায় ২জন ও অভয়নগর উপজেলায় ১জন রয়েছেন। গত ১০ মার্চ থেকে ৬ আগষ্ট পর্যন্ত যশোর জেলা থেকে যতগুলি নমুনা সংগ্রহ করে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের জেনোম সেন্টারে ও খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তার মধ্যে বর্তমানে ১২৫৬ টি নমুনা পেন্ডিং রয়েছে।

    ঝিকরগাছায় গণধর্ষণের অভিযোগ আটক ৪

    যশোরের ঝিকরগাছায় স্বামী পরিত্যক্ত এক মহিলা গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে পৌরসদরের পুরন্দপুর সাদ্দামপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পরে ৯৯৯-এ ফোনের সূত্রধরে থানা পুলিশ ভিকটিমকে উদ্ধার করে ধর্ষক গ্রেফতারে অভিযান চালায়। শুক্রবার সকালে পুলিশ চার ধর্ষককে গ্রেফতার করে।

    গ্রেফতারকৃত ধর্ষকরা হলো, পুরন্দপুর গ্রামের আব্দুল জলিল (২৩), একই গ্রামের জাকির হোসেন (২০), আলম হোসেন (৩০) ও হাসানুর রহমান (২০)। সকালে ভিকটিমকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য যশোর ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। থানায় এ ঘটনায় এগারো জনের নামে একটি ধর্ষণ মামলা করা হয়। ঝিকরগাছা থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক জানান, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে পুরন্দপুর গ্রামের স্বামী পরিত্যক্ত ওই মহিলা রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় তাকে ধরে গণধর্ষণ করা হয়। এ সময় ধর্ষকরা তাকে রাস্তার পাশে আব্দুর রাজ্জাকের ঘাষের ক্ষেতে নিয়ে ধর্ষণ করে ট্রেন লাইনের উপর ফেলে রেখে যায়। অচেতন অবস্থায় এক পথচারী তাকে দেখে ৯৯৯ এ ফোন করেন। ফোনের সুত্রধরে সেখান থেকে ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়।

    ওই রাতেই অভিযানে নেমে সকালে বিভিন্ন স্থান থেকে চার ধর্ষক গ্রেফতারে করা হয়।

    ওসি আব্দুর রাজ্জাক আরো জানান, ধর্ষকরা সকলেই মাছ ধরার জাল টানা কাজ করে। আসামিদের স্বীকারোক্তির জন্য বিকেলে আদালতে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে তাদেরকে রিমান্ড চাওয়া হবে।

    পাইকগাছার ৫ গ্রামের ৪৮ কিঃমিঃ বিদ্যুৎ সংযোগের উদ্বোধন করেন এমপি বাবু

    ‘শেখ হাসিনার উদ্যোগ-ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ’ এ স্গালোনে খুলনার পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনি ইউনিয়নের তালতলা, কানাইডাঙ্গা, চিনেমোলা, গোয়ালবাথান ও শ্রীফলতলা গ্রামের ২২০০ পরিবারের মধ্যে ৪৮ কিলোমিটার নতুন বিদ্যুৎ সংযোগের উদ্বোধন করেন খুলনা-৬ (কয়রা-পাইকগাছা) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আক্তারুজ্জামান বাবু। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে বিদ্যুৎ লাইনের উদ্বোধন শেষে বিদ্যুতায়ন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন আলহাজ্ব মোঃ আক্তারুজ্জামান বাবু এমপি। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার ইকবাল মন্টু, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আনন্দ মোহন বিশ্বাস, পাইকগাছা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম মোঃ রেজয়াত আলী, আ’লীগ নেতা দিপক কুমার মন্ডল, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান কাজল কান্তি বিশ্বাস, জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জসীম উদ্দীন বাবু, জেলা যুবলীগ নেতা শামীম সরকার, হারুন আর রশীদ, উপজেলা যুবলীগ নেতা আঃ রাজ্জাক রাজু, এম এম আজিজুল হাকিম, রাজিব গোলদার, মোস্তাফিজুর রহমান মিন্টু, মৃগাঙ্ক বিশ্বাস, হাসানুর রহমান হাসান, গৌতম সানা, পাইকগাছা পৌরসভা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রায়হান পারভেজ রনি, ছাত্রলীগ নেতা মাহবুবুর রহমান নয়ন, শংকর মন্ডল, শাহিন শাহ বাদশা প্রমুখ।

    সাপের কামড়ে দুই দিনে ২ জনের মৃত্যু

    ঝিনাইদহের শৈলকুপায় বিষধর সাপের কামড়ে দুই দিনে ২ জনের করুণ মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৭ আগস্ট) ও বুধবার (৬ আগস্ট) রাতে উপজেলার হরিহরা ও আহসাননগর গ্রামে ঘটনা দুটি ঘটে। মৃতরা হলেন হরিহরা গ্রামের আল আমিনের শিশু কন্যা জেরিন (৩) ও আহসাননগর গ্রামের জনাব ম-লের ছেলে রশিদ ম-ল (২০)।

    হরিহরা গ্রামের কলেজ শিক্ষক মিলন জানান, শিশু জেরিন বৃহস্পতিবার রাত ৩টার দিকে ঘুম থেকে জেগে হঠাৎ কাঁদতে থাকে। তার মা জেগে দেখে শিশুটির হাতে রক্ত ও কালো একটি সাপ বের হয়ে যাচ্ছে। কিছুক্ষণ পর শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে প্রথমে শৈলকুপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। এরপর ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা যায়।

    এদিকে বুধবার রাতে শৈলকুপার আহসাননগর গ্রামের রশিদ ম-লকে বিষধর সাপে কামড়ালে উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ওই গ্রামের আশরাফুল ইসলাম আরিফ।

    শৈলকুপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানান, বিষধর সাপের কামড়ে শিশুসহ দুই জনের মৃত্য হয়েছে।

    করোনার উপসর্গে উপ-সহকারী মেডিক্যাল অফিসারের মৃত্যু

    করোনা উপসর্গ নিয়ে নড়াইল সদর উপজেলার গোবরা ইউনিয়ন উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উপ-সহকারী মেডিক্যাল অফিসার ইয়ানুর হোসেন বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) রাতে মারা গেছেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৩৫ বছর। ইয়ানুর হোসেন নড়াইল পৌরসভার মাছিমদিয়া এলাকার ইউনুস শেখের ছেলে।

    নড়াইল আধুনিক সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার (আরএমও) ডা. মশিউর রহমান বাবু জানান, ইয়ানুর হোসেন কয়েকদিন ধরে জ্বর, শ্বাসকষ্ট ও গলাব্যাথায় ভুগছিলেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রচ- শ্বাসকষ্ট নিয়ে তিনি নড়াইল সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি হন। অবস্থার অবনতি হলে তাকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। শুক্রবার (৭ আগস্ট) সকালে জানাজা শেষে তাকে নড়াইল শহরের পৌর কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

    মাসুদ রানা খুন হন দোনলা বন্দুকের গুলিতে, প্রধান আসামিসহ গ্রেফতার ৯

    নড়াইলে সন্ত্রাসীদের গুলিতে মাসুদ রানা (৩৫) নামে এক ব্যক্তি নিহতের ঘটনায় ৩৬ জনকে আসামি করে বৃহস্পতিবার কালিয়া থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। ওই হত্যাকা-ে ব্যবহৃত কাজল মোল্লার লাইসেন্স করা দোনলা বন্দুক, ৮ রাউন্ড গুলি ও ৩ রাউন্ড গুলির খোসা উদ্ধার করেছে পুলিশ। এছাড়া মামলার প্রধান আসামি কাজল মোল্লা (৪৯) এবং অপর ৮ আসামিকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

    মামলার বিবরণে জানা যায়, কালিয়া উপজেলার পুরুলিয়া ইউনিয়নের দেওয়াডাঙ্গা গ্রামের পাশ দিয়ে প্রবাহিত নবগঙ্গা নদীতে জেগে ওঠা বালুর চর থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকে কেন্দ্র করে দেওয়াডাঙ্গা গ্রামের মকবুল মোল্যার ছেলে কাজল মোল্লা ও হারুন শেখের ছেলে আমিনুর শেখের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। এর জের ধরে বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে কাজল মোল্যা ও তার সমর্থিত লোকজন নিয়ে প্রতিপক্ষ আমিনুর শেখের লোকজনের ওপর সশস্ত্র হামলা চালায়। সংঘর্ষ চলাকালে প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীদের গুলিতে আমিনুর শেখ সমর্থিত মাসুদ রানা (৩৫) নিহত হন। এ সময় ৭ জন গুলিবিদ্ধসহ মোট ১০ জন আহত হন। এ হত্যার ঘটনায় বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) নিহতের ভাই মামুন শেখ বাদী হয়ে কাজল মোল্লাসহ ৩৬ জনকে আসামি করে কালিয়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

    কালিয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার রিপন চন্দ্র সরকার জানান, মামলার প্রধান আসামি কাজল মোল্লাসহ ৯ আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। হত্যাকা-ে ব্যবহৃত কাজল মোল্লার লাইসেন্স করা দোনলা বন্দুক, ৮ রাউন্ড বন্দুকের গুলি ও ঘটনাস্থলে পড়ে থাকা ৩ রাউন্ড গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়েছে।

    ২৮ কেজি রুপা ফেলে পালিয়ে গেল পাচারকারীরা

    যশোরের শার্শা সীমান্ত থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় ২৮ কেজি ২০০ গ্রাম ভারতীয় রুপা উদ্ধার করেছেন বিজিবি সদস্যরা। শুক্রবার (৭ আগস্ট) সকালে শার্শার গোগা গাজিপাড়া সীমান্ত থেকে রুপার চালানটি উদ্ধার করা হয়। খুলনা ২১ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল মনজুর এলাহী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তবে কোনো পাচারকারীকে আটক করতে পারেনি বিজিবি।

    লে. কর্নেল মনজুর এলাহী জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গোগা বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যরা গোগা গাজিপাড়া মাঠে অভিযান চালায়। সেখান থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় ২৮ কেজি ২০০ গ্রাম রুপা উদ্ধার করা হয়। বিজিবির উপস্থিতি টের পেয়ে পাচারকারীরা আগেই পালিয়ে যায়। ফলে তাদের কাউকে আটক করা যায়নি। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলে তিনি জানান।

    অবশেষে ‘বয়স্ক’ হলেন ১০৮ বছরের কিরণ বালা

    মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার চিলগাড়ি গ্রামের ১০৮ বছর বয়সী কিরণ বালা মন্ডল অবশেষে পেলেন বয়স্ক ভাতার কার্ড। একইসঙ্গে উপজেলা থেকে বাড়ি সংস্কারের জন্য এক ভান টিন ও নগত তিন হাজার টাকা দেয়া হয়েছে তাকে। বয়স্ক ভাতার কার্ড পেয়ে কিরণ বালা কেঁদে ফেলেন। তিনি সৃষ্টিকর্তার কাছে সকলের জন্য আশীর্বাদ করেন।

    কিরণ বালা মন্ডলের মেয়ের নাতি মণি কুমার বিশ্বাস বলেন, উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় থেকে তার মায়ের নানির হাতে বয়স্ক ভাতার কার্ড তুলে দেয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে ঘর সংস্কারের জন্য টিন ও টাকা দেয়া হয়েছে। শ্রীপুর উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা ওয়াসিম আকরাম জানান, বিষয়টি অবগত হওয়ার পরপরই দ্রুত কিরণ বালাকে বয়স্ক ভাতার সুবিধাভোগীর আওতায় আনা হয়েছে।

    শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়াসিন কবির বলেন, ইতোমধ্যে উপজেলার বয়স্ক ভাতার সুবিধাভোগীদের তথ্য যাচাই বাছাই চলছে। আগে অনেকে বাদ পড়েছেন। নতুন তালিকা হালনাগাদের জন্য অল্প সময়ের মধ্যেই সব এলাকায় উন্মুক্ত মাইকিং করা হবে। সেক্ষেত্রে নতুন করে আরও অনেকে বয়স্ক ভাতার আওতায় আসবেন।

    কিরণ বালার মেয়ের নাতি মণি কুমার বিশ্বাস বলেন, কিরণ বালা বর্তমানে তার সংসারেই থাকেন। জাতীয় পরিচয়পত্র অনুযায়ী কিরণ বালা মন্ডলের জন্ম ১৯১২ সালে। আসছে অক্টোবর তার বয়স ১০৮ বছর পূর্ণ হবে।

    মাগুরায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ইজিবাইকচালক নিহত

    মাগুরায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে এক ইজবাইকচালকের মৃত্যু হয়েছে। তার নাম ইমরান হোসেন (৪১)। বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) সকালে জেলার শ্রীপুর উপজেলার নাকোল গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। শ্রীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) লিটন কুমার সরকার জানান, ইমরান পেশায় ইজিবাইকচালক। বুধবার রাতে বাড়ি ফিরে ইজিবাইকটি বাড়ির একটি টিনশেড ঘরে বৈদ্যুতিক চার্জে দিয়ে রাখে। সকালে সেখানকার চার্জিং প্লাগ পয়েন্টটি খুলতে গেলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলে তার মৃত্যু হয়। রাতের বৃষ্টির কারণে ওই প্লাগ পয়েন্টটি আগে থেকে বিদ্যুতায়িত হয়েছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।

    ভিমরুলের কামড়ে প্রাণ গেল দু’বছরের শিশুর

    নড়াইলের কালিয়ায় ভিমরুলের কামড়ে দুই বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) দুপুরে নড়াইল সদর হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ওইদিন সকাল ১০টার দিকে কালিয়া উপজেলার চাঁচুড়ি ইউনিয়নের হাড়িয়াগোপ এলাকায় বাড়ির পাশে খেলার সময় তামিমকে ভিমরুলে কামড় দেয়। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, তামিমদের বাড়ির পাশে কে বা কারা ভিমরুলের চাকে ঢিল দেয়। এরপর তামিম খেলতে গেলে ক্ষিপ্ত ভিমরুলগুলো তাকে কামড় দেয়। তামিম হাড়িয়াগোপ গ্রামের মাহাব ফকিরের ছেলে।

    গোপালগঞ্জে এক ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

    পূর্ব শত্রুতার জের ধরে খাসরুল ফকির (৫৪) নামে এক ব্যবসায়ীকে প্রতিপক্ষের লোকজন কুপিয়ে হত্যা করেছে। শুক্রবার গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার ভেড়ারবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত খসরুল ফকির একই উপজেলার পশ্চিম আড়পাড়া গ্রামের মৃত সিরাজুল (ছিরু) ফকিরের ছেলে। তিনি ভেড়ারবাজার এলাকায় ধান-চালের ব্যবসা করতেন। গোপালগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মনিরুল ইসলাম জানান, খসরুল ফকিরের সাথে চাচাতো ভাই হাসান ফকিরের জমিজমা নিয়ে দির্ঘদিন যাবৎ বিরোধ চলে আসছিলো। গত বৃহস্পতিবার (০৬ আগষ্ট)সন্ধ্যায় দুই পরিবারের মধ্যে কথা কাটিকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এর জের ধরে আজ হাসান ফকিরের লোকজন ভেড়ারবাজার এলাকায় এসে জুম্মার নামায শেষে বাড়ীতে ফেরার পথে তাকে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

    গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রীর শ্রদ্ধা

    পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন (এম পি) বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর খুনীদের দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে চিঠি দিয়েছেন। আমরা আশা করছি মুজিব বর্ষে বঙ্গবন্ধুর খুনীদের আরও একজনকে দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারর সম্মুখীন করবো।তিনি আরো বলেন, করোনায় আক্রান্ত হয়ে যারা দেশে ফিরেছেন তাদেরকে কাজে লাগাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে ইতিমধ্যে দুই হাজার কোটি টাকার প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। লেবাননের বৈরুতে ভযাবহ বিস্ফোরনে নিহত চার বাংলাদেশীর লাশ ফিরিয়ে আনা হবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, আমাদেরতো না আনার কোন কারন নেই। তবে সেখান থেকে আমাদের দেশে সরাসরি কোন ফাইট নেই। তাছাড়া এমুহূর্তে লাশ আনতে খরচও অনেক বেশী, প্রায় ১২ হাজার ডলার। তারপরও বিষয়টি নিয়ে আমাদের চিন্তা-ভাবনা চলছে। এ ঘটনায় নৌ-বাহিনীর ২১ সদস্যসহ ৯৯ বাংলাদেশী আহত হয়েছে। সেখানকার কমপক্ষে ৩ লাখ মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়েছে। বর্তমানে সেখানে খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে। আমরা মেডিকেল টিম পাঠাতে চেয়েছিলাম। কিস্তু ফ্রান্সসহ বিভিন্ন দেশ ইতিমধ্যে সেখানে মেডিকেল টিম পাঠিয়েছে। তাই প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সেখানে আমরা চাউল, বিস্কুট ও নুডল্সসহ পর্যাপ্ত শুকনো খাবার পাঠানোর ব্যবস্থা করেছি। যে কোন মুহূর্তে ফাইট রওনা হবে।

    শুক্রবার বেলা আড়াইটায় তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন ও মোনাজাত শেষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন। এ সময় গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা, পুলিশ সুপার মুহাম্মদ সাইদুর রহমান খান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মাহাবুব আলী খানসহ স্থানীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

    বটিয়াঘাটায় সুদখোরদের ফাঁদে পড়ে বহু গরীব অসহায় মানুষ নিঃস্ব হয়ে যাচ্ছে

    বটিয়াঘাটায় এনজিওর পাশাপাশি সুদখোর দাদন ব্যবসায়ীদের ফাঁদে পড়ে গ্রামের গরীব অসহায় মানুষ সর্বশান্ত হয়ে যাচ্ছে। সূত্রে প্রকাশ, উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এক শ্রেনীর সুদ ব্যবসায়ী সরকারি আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে রমরমা সুদের ব্যবসা করে অসহায় সাধারন মানুষকে সর্বশান্ত করে দিচ্ছে। যেখানে দেশের সর্বোচ্চ ব্যাংক বাংলাদেশ ব্যাংক সহ সকল ব্যাংকে সঞ্চয়পত্র ক্রয় করলে ১লক্ষ টাকায় সর্বোচ্চ সুদের হার ৭শত থেকে ৮শত টাকা। সেখানে গ্রামের সুদ ব্যবসায়ীরা অসহায় মানুষদের সরলতার সুযোগ নিয়ে বিভিন্ন ধরনের ফাঁদে ফেলে ফাঁকা ষ্ট্যাম্প ও ফাঁকা ব্যাংক চেক নিয়ে প্রতিলক্ষ টাকায় ৫ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা করে সুদ আদায় করছে। আর সুদের টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করলে উক্ত ফাঁকা ষ্ট্যাম্প ও ফাঁকা ব্যাংক চেক দিয়ে আদালতে মামলা ও পুলিশ দিয়ে অমানসিক নির্যাতন চালাচ্ছে।

    অনেক ভূক্তভোগী নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে ভিটেমাটি ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। অনেকে আবার আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে বলে জানা যায়। জলমা ইউনিয়নের অনেক সুদ ব্যবসায়ী সুদের টাকার বিনিময়ে ভূক্তভোগীর বসত বাড়ীসহ জমিজমা লিখে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অন্যদিকে আমীরপুর ইউনিয়নের নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক ভূক্তভোগী এ প্রতিবেদকে জানান, নারানখালী গ্রামের মৃতঃ ফজর আলীর ছেলে ইমরান শেখ দীর্ঘ দিন ধরে সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে প্রতিলক্ষ টাকায় ১০ হাজার টাকা করে সুদ আদায় করে আসছে। ইমরানের সুদের ফাঁদে পড়ে বহু গরীব অসহায় মানুষ সর্বশান্ত হয়ে গেছে। সুদের টাকা দিতে না পারায় অনেক ভূক্তভোগীর সুদের পরিবর্তে স্ত্রীকে তার হাতে তুলে দিতে হয়। বর্তমানে এ ভাবে ইমরানের চার জন স্ত্রী হয়েছে বলেও জানায়। সবমিলিয়ে সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে অসহায় মানুষদের সুদের ফাঁদে ফেলে নিঃস্ব করে দিচ্ছে। এ ব্যাপারে উপজেলার অসহায় মানুষ সুদখোরদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছে।

    পিএমজি’র সাবেক কর্মকর্তা জিয়াউল হকের মাগফেরাত কামনায় দোয়া অনুষ্ঠিত

    খালিশপুর সরকারী হাজী মুহসিন কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক নার্গিস সাবিনার পিতা ও পিএমজি’র সাবেক কর্মকর্তা এবং বিশিষ্ট সমাজ সেবক আলহাজ¦ খান জিয়াউল হকের মৃত্যুতে তাঁর রুহের মাগফেরাত কামনায় ৭ আগষ্ট শুক্রবার জুম্মাবাদ ছোট বয়রাস্থ সিরাজুল ইসলাম জামে মসজিদ, রয়রা জামে মসজিদ, নুরানী জামে মসজিদ, মসজিদি হাতিম , মসজিদুল কাওসার ও মসজিদুল আকসা সহ ৬টি জামে মসজিদে দোয়ার অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। দোয়ার অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এলাকার বিশিষ্ট গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও সর্বদলীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। উল্লেখ্য, পিএমজি’র সাবেক কর্মকর্তা খান জিয়াউল হক ৩১ জুলাই শুক্রবার রাত সাড়ে ৯ টায় ছোট বয়রা ইসলামীয়া কলেজ রোডস্থ নিজস্ব বাসভবনে বার্ধক্য জনিত কারণে ইন্তেকাল করেন।

    শরণখোলায় মোবাইলের শো-রুমে দুর্ধর্ষ চুরি

    বাগেরহাটের শরণখোলায় একটি মোবাইলের শো-রুমে দুর্ধর্ষ চুরি সংঘটিত হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে উপজেলার রায়েন্দা বাজারে এ চুরির ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার রাতে চোর চক্র উপজেলা সদর রায়েন্দা বাজারের রুবেল টেলিকম নামের একটি শো-রুমের শার্টার কেটে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের প্রায় ১০লাখ টাকা মূল্যের মোবাইল ফোন সেট নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে ওই শো-রুমের মালিক মো. রুবেল হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে দোকান বন্ধ করে তিনি বাসায় যান। গতকাল (শুক্রবার) সকাল ৯টায় দোকানে এসে দেখেন শার্টার কাটা এবং ভেতরে ডিসপ্লে শোকেজগুলো ফাঁকা। চোরেরা অপো, নোকিয়া, স্যামসাং, সাওমি, সিম্ফনি ব্র্যান্ডের ৪২টি অ্যান্ড্রয়েড ফোন নিয়ে গেছে। যার মূল্য প্রায় ১০লাখ টাকা। এ্যাপারে শরণখোলা থানায় অভিযোগ করেছেন তিনি।

    শরণখোলা থানার সেকেন্ড অফিসার (উপ-পরিদর্শক) এসএম আবুল বাশার জানান, খবর পেয়ে তিনি দোকান পরিদর্শন করেছেন। চুরির রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা চলছে। এব্যাপারে বাজারের পাহারাদারদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

    এ ব্যাপারে শরণখোলা থানার অফিসার ইন চার্জ এস কে আব্দুল্লাহ আল সাইদ জানান, ইতিমধ্যে কিছু চিহ্নিত চোরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। চুরি প্রতিরোধে পুলিশের পাশাপাশি কমিউনিটি পেট্রোলিং নিশ্চিত করতে জনসচেনতা সৃষ্টির ব্যাবস্থা নেয়া হচ্ছে।

    বাগেরহাটে করোনা উপসর্গ নিয়ে সংগীত শিক্ষক মৃত্যু

    বাগেরহাট শিশু একাডেমীর সংগীত শিক্ষক ও জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী রিটন মন্ডল(৩৫) করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। বাগেরহাট সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি থাকা অবস্থায় শুক্রবার সকালে তিনি মারা যান। মোংলার হলদিবুনিয়া গ্রামের লক্ষিকান্ত মন্ডলের ছেলে রিটন মন্ডল বাগেরহাট শহরের নাগেরবাজার এলাকায় বাস করতেন। তার পিতাও অসুস্থ্য হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন। মাত্র এক মাস আগে রিটন মন্ডল বৃষ্টি সরকার নামে এক তরুণীকে বিয়ে করেন। অত্যন্ত বিনয়ী ও সদালাপী রিটন মন্ডলের অকাল মৃত্যুতে বাগেরহাটের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সর্বত্র শোকের ছায়া নেমেছে।

    এরআগে অনুরূপ উপসর্গ নিয়ে আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি থাকা অবস্থায় বিশিষ্ট সমাজসেবক শেখ ওবায়েদুর রহমান বাবু(৪০) মারা যান। শুক্রবার দুপুরে তার বড়ভাই কচুয়ার গজালিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শেখ নাসির উদ্দিন জানান, তার ভাই করোনা উপসর্গে সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে মারা গেছেন। ওই সময়ে তার কাছে থাকা তার স্ত্রী ডালিয়া কেগম-সহ শ্বাশুড়ি ও শ্যালিকার নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজেটিভ সনাক্ত হয়েছে। তবে ওবায়েদুরের নমুনা পরীক্ষা করা হয়নি।

    প্রসঙ্গত: গত মঙ্গলবার বাগেরহাট সদর হাসপাতালের করোনা উপসর্গ নিয়ে আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি ফকিরহাটের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ইব্রাহীম বিশ্বাস (৭২) ও মোড়েলগঞ্জ উপজেলার ফুলহাতা গ্রামের শফিজউদ্দিনের ছেলে ঘের মালিক জাহিদ হোসেন তালুকদার(৪৫) অনুরূপ মারা যান। তাদেরও নমুনা সংগ্রহ করা হয়নি বলে তাদের স্বজনেরা জানিয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে আইনজীবী, চিকিৎসকসহ ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে।

    বাগেরহাটে ঠিকাদারের কাজের ফাঁকিতে জনগনের ভোগান্তি

    বাগেরহাটের চিতলমারীতে মাত্র কয়েক মাস আগে রাস্তা গুলোর মেরামতের কাজ শেষ হয়েছে। অথচ কিছু দিন যেতে না যেতেই তা কার্পেটিং উঠে নষ্ট হয়ে গেলো। রাস্তা এখন খানাখন্দে ভরা। অনেক রাস্তাাতো কাঁদা মাটিতে একাকার। চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। তাই ঠিকাদারের কাজের ফাঁকি এখন জনগনের ভোগান্তি হয়ে দাঁড়িয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার বিপদের মোড়ে বসে এমনটাই জানালেন বয়সের ভারে ন্যূয়ে পড়া ভ্যানচালক নবের আলী শেখ (৬৫)। তিনি আরো জানান, এ উপজেলার অধিকাংশ সড়ক এখন যানবহন চলাচলের অনুপযোগি। মাত্র ৬ থেকে ৮ মাস আগে মেরামত করা রাস্তাা গুলো এখন ভ্যান, নছিমন ও ট্রাক ড্রাইভারদের গলার কাটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রতিদিন দুর্ঘটনা ঘটছে। অথচ প্রতি বছর সরকারের বাজেটের কোন ঘাটতি নেই। সংস্কারের জন্য উন্নয়ন ব্যয় করা হচ্ছে। কিন্তু তদারকির অভাবে রাস্তাা-ঘাটের এই করুণ অবস্থা। এখানে ঠিকাদারের লোকজন কাজ করার সময় ইঞ্জিনিয়ার অফিসের এসও ঠিকমত সাইডে আসে না।

    বোয়ালিয়া গ্রামের ভ্যান চালক শান্তি রঞ্জন মন্ডল, বাবুগঞ্জের আক্কাস আলী, সুরশাইলের আকবর আলী, খিলিগাতী গ্রামের মিঠুন বাওয়ালী ও পাটরপাড়া গ্রামের জাহিদ আলীসহ অনেকে জানান, বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়কের অনেক জায়গায় বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টির পানি আটকে সেখানে মরণ ফাঁদের সৃষ্টি হয়। সেখান থেকে সবজি বোঝাই ট্রাক চরমভাবে দূর্ভোগের শিকার হচ্ছে। কোথাও কোথাও ট্রাক আটকে পড়ায় ঘন্টার পর ঘন্টা সড়ক অবরুদ্ধ হয়ে পড়ছে। ফলে ব্যাপারীদের রোষানলে পড়ে সবজির ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছে চাষীরা। অনেক সড়ক আবার সংষ্কারের অভাবে চলাচলে সম্পূর্ণ অনুপযোগি হয়ে পড়ায় গ্রামবাসীরা উৎপাদিত ফসল বাজারে নিতে হিমসিম খাচ্ছেন।

    ফরিদপুরের ভাংগা এলাকার ট্রাক ড্রাইভার মোঃ মাসুদ বেপারী জানান, তিনি ১৩ বছর ধরে গাড়ী চালান। বহু খারাপ রাস্তাা চলেছেন। কিন্তু চিতলমারী আসলে বুকের ভিতর কাঁপে। সর্বক্ষণ আতংকে থাকেন। কখন যেন গাড়ী ফেসে যায়। এই সমস্তা রাস্তাা তাড়াতাড়ি সংস্কার হওয়া দরকার বলে তিনি দাবী করেন।

    এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কোন ঠিকাদার মন্তব্য করতে রাজি হননি। চিতলমারী সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ নিজাম উদ্দিন শেখ জানান, তার এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ রাস্তাার কথা তিনি মাসিক আইন-শৃংখলা মিটিংয়ে তোলেন। কিন্তু তার কথায় কেউ সাড়া দেয়নি।

    তবে চিতলমারী উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ জাকারিয়া ইসলাম বলেন, যে সকল রাস্তাা ক্ষতিগ্রস্থ তার অধিকাংশ সড়কে পানি উন্নয়ন বোর্ডের আওতায় খাল পুনঃখনরের কাজে ব্যবহৃত দশ চাকার বড় গাড়ী চলাচলের জন্য হয়েছে। বাখরগঞ্জ থেকে গোদাড়া গেটের রাস্তাাটি কয়েক স্থানে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এছাড়া মধুমতী ও চিত্রা নদীর পাড়ে চিতলমারী থেকে বাবুগঞ্জ এবং চিতলমারী থেকে বাখরগঞ্জ সড়কে ফাটল ধরেছে। অফিসিয়াল ভাবে আমরা পানি উন্নয়ন বোর্ডকে অবহিত করেছি এবং জনদূর্ভোগ নিরসনের জন্য আমরা দ্রুত চেষ্টা করছি।

    চিতলমারীর সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ

    বাগেরহাট জেলার চিতলমারী উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান শামীমের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীর জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। জোরপূর্বক বালু ভরাট ও ভবন নির্মানের এক পর্যায়ে জমির মালিক দাবিদার মোঃ জাহিদুল ইসলাম তাপসের অভিযোগে সোমবার (০৩ আগস্ট) চিলতমারী থানা পুলিশ কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন। চিতলমারী উপজেলার কিসমত পিপড়াডাঙ্গা মৌজার কালিগঞ্জ বাজার সংলগ্ন উপর ৬০ শতক জমি নিয়ে এ বিরোধের সৃষ্টি হয়েছে।

    অভিযোগকারী মোঃ জাহিদুল ইসলাম তাপস বলেণ, ১৯৫৫ সাল থেকে আমার দাদা নাজিম উদ্দিন শেখ কিসমত পিপড়া ডাঙ্গা মৌজার কালিগঞ্জ বাজার সংলগ্ন তিনটি স্থানের মোট ৬০ শতক জমি ভোগদখল করেন। দাদার মৃত্যুর পরে আমার্ পিতা আবুবকর শেখ ও চাচাগণ এই জমি যথারীতি ভোগ দখল করা শুরু করেন। কিন্তু ২০১৬ সালে হঠাৎ করে চিতলমারী উপজেলা পরিষদের তৎকালীন চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান শামীম আমাদের জমির উপর বালু ফেলা শুরু করেন। আমরা বাঁধা দিলে বলেন সামান্যকিছু দিনের জন্য বালু গুলো থাকুক, পরে আবার নিয়ে যাব। কিন্তু তিনি বালু তো নেয় না, বরং আমাদের জমি দখলের পায়তারা শুরু করেন। পরবর্তীতে আমরা আদালতের সরনাপন্ন হলে আদালত ওই জমির উপর ১৪৪ ধারা জারি করেন। কিন্তু দখলবাজ মুজিবুর রহমান শামীম রাতের আধারে তার লোকজন নিয়ে জমিতে ঘর নির্মানের উদ্ধত হয়। আমরা বাঁধা দিলে মারপিটের ভয় দেখায়। চেয়ারম্যোনের কাছে গেলে বলে জমি তোমাদের, জমির কাগজ তোমাদের কিন্তু জমি তোমরা খেতে পারবা না। জমি ভোগদখল করব আমি।এক পর্যায়ে রেবিবার রাতে এসে ওই জমিতে আবারও ঘর নির্মান শুরু করেন চেয়ারম্যান ও তার লোকেরা। আমরা বাঁধা দিলে তারা আমাদের উপর চড়াও হন। পরে আমরা থানায় জানালে পুলিশ এসে কাজ বন্ধ করে দেয়। তার কাগজপত্র নিয়ে থানায় দেখা করতে বলেন।

    অভিযোগকারী মোঃ জাহিদুল ইসলাম তাপসের ভাই জহিরুল ইসলাম বলেন, চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান শামীম শুধু আমাদের জমি নয়। স্থানীয় অনেকের জমি জোর দখল করে ভোগ করছেন। অনেকের জমি দখলের জন্য হুমকী ধামকিও দিচ্ছেন। পৈত্রিক সম্পত্তি সুষ্ঠভাবে ভোগ দখল করার জন্য বাগেরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দিনের হস্তাক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

    স্থানীয় আব্দুস সোবহান বালী বলেণ, আমি একজন হতদরিদ্র মানুষ। চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান শামীম জোর করে আমার ২২ শতক জমি ভোগ দখল করছেন। আমি কোথাও গিয়ে বিচার পাচ্ছি না।দেলোয়ারের জমিও দখল দিয়েছেন মুজিবুর রহমান শামীম।

    ভ্যান চালক মোঃ ফারুক শেখ বলেন, ১৯৯৭ সাল থেকে বাজার সংলগ্ন ২৭ শতক জমিতে বাড়ি করে বসবাস করে আসছি। কিন্তু গেল বছর একটি রান্না ঘর তৈরি করতে গেলে চেয়ারম্যানের লোকেরা বাঁধা দেয়, বলে এই জমি চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান শামীমের। পরে আমি আর রান্নাঘর তৈরি করতে পারিনি। যেখানে যাই কেউ তার উপরে কথা বলে না। চিতলমারী থানার এসআই সঞ্জয় দে বলেন, মোঃ জাহিদুল ইসলাম তাপসের করা অভিযোগের ভিত্তিতে বিবাদপূর্ণ ওই জমিতে আমরা কাজ বন্ধ করে দিয়েছি। ৮ আগস্ট দুই পক্ষকে থানায় ডাকা হয়েছে। দুই পক্ষের সাথে কথা বলে শান্তিপূর্ণ সমাধানের চেষ্টা করব। এসব বিষয়ে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান শামীমের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন নিউজ করার মত কোন ঘটনা ঘটেনি। জমির ব্যাপারে আমি কোন কথা বলব না

    পর্যটক শূন্য ঐতিহ্যবাহী ষাটগম্বুজ মসজিদ

    বাগেরহাটে এবার ঈদেও পর্যটক শূন্য ঐতিহ্যবাহী ষাটগম্বুজ মসজিদ। করোনা পরিস্থিতির কারণে ঈদুল ফিতরের মতো ঈদুল আজহায়ও পর্যটক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা ছিল ষাটগম্বুজ মসজিদে। ফলে ছয়শ’ বছরের বেশি সময় ধরে চলে আসা দেশি বিদেশি পর্যটকদের কোনো আনাগোনাই ছিল না ঈদে। ঈদের দিন মসজিদ এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, অনেকেই ভেতরে ঢুকতে না পেরে গেট থেকে ফিরে যাচ্ছেন। রাইডস গুলো দীর্ঘদিন ধরে পড়ে থাকায় মরিচা পড়ে যাচ্ছে। তবে ষাটগম্বুজ মসজিদ প্রাঙ্গণে নানা প্রজাতির ফুল ফুটেছে। প্রকৃতি যেন নতুন করে সাজিয়ে দিয়েছে। এদিকে দীর্ঘদিন এমন পর্যটক শূন্য ষাটগম্বুজ মসজিদ মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে স্থানীয়দের।

    স্থানীয় যুবক শহিদুল ও চঞ্চল বলেন, ‘ছোট বেলা থেকেই সব সময় ষাটগম্বুজ মসজিদে পর্যটকদের ভিড় দেখেছি। করোনার কারণে কয়েক মাস ধরে পর্যটক প্রবেশ নিষেধ থাকায় এখানে কেউ আসে না। ষাটগম্বুজ এখন খালি খালি লাগে। মুসলিম স্থাপত্যের অনন্য নিদর্শন ষাটগম্বুজকে এভাবে প্রাণহীন দেখতে আর ভালো লাগে না।’

    বাগেরহাটের ষাটগম্বুজ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ আক্তারুজ্জামান বাচ্চু বলেন, ‘করোনার কারণে দীর্ঘদিন ধরে এখানে পর্যটক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। শুধুমাত্র ওয়াক্তিয়া নামাজে কয়েকজন আসেন এবং নামাজ পড়ে চলে যান। আগের মতো হাজারো মানুষের পদচারণায় আর মুখর হয়ে ওঠে না।’

    প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর বাগেরহাট কাস্টোডিয়ান মো. গোলাম ফেরদাউস বলেন, ‘করোনার কারণে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী পর্যটকদের প্রবেশ নিষেধ থাকায় কেউ ষাটগস্বুজে প্রবেশ করতে পারছেন না। আমরা যখন নির্দেশনা পাব তখন নিষেধাজ্ঞা তুলে নেব।’

    মহেশপুরে ব্যাংক এশিয়ার এজেন্ট ব্যাংকিং কার্যক্রমের উদ্বোধন

    ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার ১১নং মান্দারবাড়ীয়া ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের বেলেমাঠ বাজারে ব্যাংক এশিয়া লিমিটেডের এজেন্ট ব্যাংকিং কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। শুক্রবার সকালে উপজেলার ১১নং মান্দারবাড়ীয়া ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার আয়োজিত অনুষ্ঠানে ব্যাংক এশিয়া লিমিটেডের এর ডিস্ট্রিক ম্যানেজার নাজমুল হাসানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন ১১নং মান্দারবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিদুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন মান্দারবাড়ীয়া ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আলতাফ হোসেন, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মশিয়ার রহমান,অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ব্যাংক এশিয়ার এআরও বাহারুল ইসলাম ও তরিকুল ইসলাম রানা, ইউপি সদস্য আবু তালেব,ইসরাইল হোসেন লিটন,রেহেনা খাতুন প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন ব্যাংক এশিয়ার এজেন্ট জাহিদুল ইসলাম।

    মোড়েলগঞ্জে মৎস্যজীবী লীগের ১৫ আগষ্ট পালনের প্রস্তুতিমূলক সভা

    বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের উপজেলা শাখার উদ্যোগে শুক্রবার সকাল ১১টায় বারইখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস পালনের প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

    সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাগেরহাট জেলা মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আব্দুস সবুর, সহ-সভাপতি মো. জাহাঙ্গীর আলম সিকদার, বাগেরহাট সদর উপজেলা সভাপতি মো. জাকির হোসেন, সমাজ সেবক আব্দুল গফফার হাওলাদার। উপজেলা সভাপতি মো. মুনসুর আলী শেখের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক মো. আল আমিন শেখ, পৌর সভাপতি মো. মনিরুজ্জামান মল্লিক, সাধারণ সম্পাদক কাজী নাসির উদ্দিন প্রমুখ।

    এ সময় উপজেলার ইউনিয়ন ও পৌর ওয়ার্ড সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সহ মৎস্যজীবী লীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি বলেন, প্রাণঘাতি করোনা পরিস্থিতিতে যথাযোগ্য মর্যাদায় স্বল্প পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ইউনিয়ন ও পৌর ওয়ার্ডে ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস পালন করার জন্য আহ্বান করা হয়েছে।

    যশোরে ছেলে ও ছেলে বউয়ের চুরির অভিযোগে মামলা

    শহরের বারান্দী মোল্যাপাড়ায় এক কুয়েত প্রবাসীর ছেলে ও তার স্ত্রী ঘরের আলমারি খুলে নগদ এক লাখ টাকা ও ৫ভরি ৮ আনা ওজনের স্বর্ণের গহনা চুরি করে আত্মগোপন থেকে মোবাইল ফোনে হত্যার হুমকী দিচ্ছে। এ ঘটনায় ছেলে মেহেদী হাসান রাজা ও ছেলের বউ মোছাঃ মিম এর বিরুদ্ধে কোতয়ালি মডেল থানায় বৃহস্পতিবার গভীর রাতে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

    যশোর শহরের বারান্দী মোল্যাপাড়া বাসা নং ২০৮ মৃত শেখ মোদাচ্ছের হোসেনের ছেলে কুয়েত প্রবাসী ফজলুল করিম ওরফে টুটুল তার ছেলে মেহেদী হাসান রাজা ও তার স্ত্রী মোছাঃ মিমের বিরুদ্ধে এজাহার দায়ের করে বলেছেন,তার ছেলে মেহেদী হাসান রাজা ইয়াবা ও হেরোইন সেবন করে। তার বিরুদ্ধে একাধিক মাদকসহ অস্ত্র মামলা রয়েছে। মেহেদী হাসান রাজা তার স্ত্রী মোছা মিম এর কুপ্ররোচনায় ফজলুল করিম ও মাতা মোছাঃ নাজমা করিমের কাছে বেশী বেশী টাকা দাবি করে। রাজার চাহিদা মেটাতে ব্যর্থ হলে গত ৩ আগষ্ট রাত সোয়া ১১ টায় মেহেদী হাসান রাজা তার স্ত্রী মীমের প্ররোচনায় রান্না ঘর হতে ধারালো বটি নিয়ে হত্যার হুমকী দিয়ে ঘরের আলমীরা ভেঙ্গে নগদ ১লাখ টাকা ও ৫ ভরি ৮ আনা ওজনের স্বর্ণের গহনা নিয়ে দু’জনে আত্মগোপন করে। পরবর্তীতে মেহেদী হাসান রাজা তার চাচাতো ভাই রকির মোবাইল ফোনে আত্মগোপন থেকে থেকে ফোন করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। সাথে সাথে ২/৩ দিনের মধ্যে পিতা ও মাতাকে হত্যার হুমকী দেয়। বর্তমানে ফজলুল করিম ওরফে টুটুল ও তার স্ত্রী নাজমা করিম চরম আশংকার মধ্যে দিনাতিপাত করছে।

    খুলনার তেলিগাতীতে ব্যাবসায়ীর ট্রাক চুরি

    নগরীর আড়ংঘাটা থানাধীন কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের সামনে থেকে ব্যসায়ীর ট্রাক চুরি। ৬ আগষ্ট দিবাগত রাতেতেলিগাতী ল্যাবরেটরী রোডের মের্সাস এম এ এন্টার প্রাইজের মালিক মোস্তাফিজুর রহমানের ২টি ট্রাক দোকানের সামনে রাখা ছিল। সকালে ট্রাকের ড্রাইভার তেলিগাতি গ্রামের রাজাপুর এলাকার মোঃ হান্নান (৫০)কে সাথে নিয়ে ঘেরের মাছ বিক্রি করে ৭ আগষ্ট সকাল ৮টায় দোকানের সামনে এসে দেখে ২ টি ট্রাকের মধ্যে ১ টি ট্রাক নেই। চুরি হয়ে যাওয়া ট্রাকের নং-খুলনা মেট্রো – ট ১১- ১৬৮৮। সকাল সাড়ে ৯ টায় কেএমপির অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (উত্তর) সোনালী সেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন । আড়ংঘাটা থানার ওসি কাজী রেজাউল করিম জানান এ ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরী হয়েছে এবং চুরি হয়ে যাওয়া ট্রাক উদ্ধারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে ।

    কেশবপুরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদতবার্ষিকী পালনের লক্ষ্যে মতবিনিময়সভা অনুষ্ঠিত

    যশোরের কেশবপুরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদতবার্ষিকী পালনে কর্মসূচি নির্ধারণের লক্ষ্যে মতবিনিময়সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে আবু শারাফ সাদেক অডিটোরিয়ামে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য ও যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার।

    প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, আগস্ট মাস শোকের মাস। আর এ মাস আসলেই স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি ষড়যন্ত্রে মেতে ওঠে। তবে স্বাধীনতা বিরোধীদের কোনো স্থান কেশবপুরের মাটিতে থাকবে না।

    তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের অহংকার। তাই স্বাস্থ্যবিধি মেনেই জাতীয় শোক দিবস পালন করা হবে।

    তিনি আরো বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ আজ ঐক্যবদ্ধ। তার হাত ধরেই বাংলাদেশ উন্নয়নের মহাসড়কে পরিণত হয়েছে। আর এ উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় কেশবপুরকে মডেল উপজেলায় পরিণত করা হবে। শিক্ষাক্ষেত্রে উন্নতির জন্য যা যা প্রয়োজন তার ব্যবস্থা করা হবে।

    এতে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এসএম রুহুল আমিন। সঞ্চালনা করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফা। মতবিনিময়সভায় অংশ নেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি তপন কুমার ঘোষ মন্টু, সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এইচএম আমির হোসেন, কেশবপুর পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলাম, যশোর সদর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহারুল ইসলাম, যশোর শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান বিপু, কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক গৌতম রায়, কেশবপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পলাশ মল্লিক, পাঁজিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এসএম শফিকুল ইসলাম মুকুল, বজলুর রহমান, শহীদুল্লা ইসলাম প্রমুখ।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০৩১