• শিরোনাম

    গল্প :

    পরাবাস্তব / মনস্বিতা বুলবুলি

    | ১৭ আগস্ট ২০২০


    পরাবাস্তব /  মনস্বিতা বুলবুলি

    পরাবাস্তব / মনস্বিতা বুলবুলি

    হাল্কা সুরে হিন্দি গজল শুনছে রিয়া।

    জীবনের সব জটিলতা ভাসিয়ে দিতে চায় সুরের হাওয়ায় ।জীবন যখন জগদ্দল পাথর হয়ে চেপে বসে বুকে তখন কেবল সুরের মূর্ছনাই রিয়াকে এই অবাস্তব জীবন থেকে স্বাভাবিক ভুবনে নিয়ে যায়।


    যে ভুবনটা সে অনেক অনেক আগে পেছনে ফেলে এসেছে। মাঝে মাঝে রিয়া ভাবে সেকি সত্যি কোন স্বাভাবিক মানুষের সমাজে আছে নাকি এটা কোন পরাবাস্তব জীবন।রক্তমাংসের মানুষ যখন চাবি দেয়া কলেরমেশিন হয়ে বেঁচে থাকে কিংবা রুপকথার গল্পের দৈত্য দানব বা পেত্নী হয়ে বেঁচে থাকে তখন সেটাকে তো পরাবাস্তব জগত বলেই মনে হয়।

    ছোটবেলায় শোনা রূপকথার গল্পের সেই জাদুর কাঠির ছোঁয়ার মত এক নিমেষেই সব কেমন বদলে গেছে।এতগুলো বছর এই পরাবাস্তব জগতে জীবনটা কেটে যাচ্ছে, তবুও রিয়ার মনে হয়যেন গত রাতের পর সকালে ঘুম ভেঙে এই জীবনে সে ঢুকে পরেছে। তাঁর সেই প্রাণোচ্ছল ঝলমলে জীবন এখনও তাঁর বুকে কাঁটা হয়ে বিধে আছে।কাঁটাই তো।


    যে সুখ ভোলা যায় না আর কখন ফিরেও আসে না তার চেয়ে বিষাক্ত কাঁটা কি কিছু হয়!এই নতুন জগতে চেনা মুখ নিয়ে অচেনা মানুষেরা ঘুরে বেড়ায়। তাদের সব কিছুই কেমন অদ্ভুত।মানুষ বলে মনে হয়না একেবারেই।মানুষ সমাজবদ্ধ জীব– কতবার পড়েছে রিয়া এই কথাটা ইস্কুলে।তখন পড়তে হত বলে পড়া। কখনো এটা নিয়ে সে ভাবেনি গভীরভাবে।

    ।কারন সবাই তো মিলেমিশেই ছিল — পরিবারে,ইস্কুলে ,পাড়ায়, নাচের স্কুলে, নাটকের দলে –সবখানেই।সংসারে অভাব অনটন থাকলেও মনে ফুর্তি ছিল,উদ্যম ছিল, বেঁচে থাকায় আনন্দ ছিল।


    ভাই-বোনেরা মিলে আড্ডা,সুখ-দুঃখ ভাগ করে নেয়া,বান্ধবীদের সাথে অকারন গল্প,হাসাহাসি, খেলা।মনে হত যেন প্রানের দোসর, আনন্দের ঝরনা।কৈশোরের পর শরীর,মনের নতুন জাগরন,শিহরন,ছেলেদের প্রেম নিবেদন বসন্তের হুহু করা দখিনা বাতাসের মত এক কল্পনার রঙিন জগতে ডুবিয়ে রাখতো। পেটের কথা হজম হতো না বান্ধবীদের সাথে না বলা অব্দি।

    প্রত্যেকেই অস্থির থাকত কতক্ষণে সবাই একসাথে হয়ে সব কথা বলবে। দিধা,ভয়,লজ্জা, সংকোচ, স্বার্থ কিছুই ছিল না তাদের বন্ধুত্বে।প্রানে প্রান মিলিয়ে বাঁচার এক গভীর আনন্দ সব সমস্যাকেই হালকা করে দিত।রিয়া রান্নার কাজ পারতোনা একদম।কেউ কেউ বলতো বিয়ে হলে কি করবে?রিয়া বলতো ‘আমি না পারলে কি হবে,আমার বান্ধবীতো পারে।

    ‘ রিয়া তার ঘনিস্টসেই বান্ধবীকে নিজের জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ ভেবে নিয়েছিলো। এখন মনে পরলে ভাবে –‘কি বোকা বোকা ভাবনাই না ভাবতাম এক সময়।আসলে তখনকার মানুষ গুলোই কি বোকা ছিল? বাবা সারা জীবন বাজার থেকে ঠকে আসতেন। যার যে দাম নয় তারচেয়ে বেশি দাম দিয়ে আসছেন বা পচা মাছ বেশি দামে নিয়ে আসছেন।

    আর মায়ের বকুনি শুরু হয়ে যেত। বাবা তখন বলতেন ‘আমি যদি না ঠকি ওরা জিতবে কি করে? আমিতো ইচ্ছে করেই ঠকি।’হে, মানুষতো বোকা হতেই পারে, এটাই স্বাভাবিক।

    তখন মানুষ ছিল, বোকামি ছিল,ভুল ছিল, স্বার্থও ছিল, তবে তাই বলে এমন ভূতুরে জগত ছিল না সেটা। এখন কেউ আর বোকা হতে চায় না, সবাই নির্ভুল, চালাক হতে চায়।এখন ভুল করলে বা বোকামি করলে সমাজ তাঁকে আর সুযোগ দেয় না। তাঁকে এই দৌড় সর্বস্ব জীবনের ময়দানে হোঁচট খেয়ে পড়ে যেতে হয় আর তাঁর আশপাশের দৌড়তে থাকা মানুষেরা নিজেদের লক্ষ্যে পৌঁছতে তাঁকে পায়ে দলে, পিষ্টে এগিয়ে যেতে চায়।এটা যেন আর কোন জীবন নয়।

    এক অবিরত প্রতিযোগিতা। সবাই সবার প্রতিদ্বন্দ্বী। ভাই-বোন, বন্ধু, সহকর্মী, প্রতিবেশী, আত্মীয়স্বজন সবাই।। এই প্রতিযোগিতায় তোমাকে নামতেই হবে,নিস্তার দেবেনা কেউ।আর দৌড়তে দৌড়তে যদি ক্লান্ত হও, হোঁচট খেয়ে আর উঠতে না পার তবে তোমাকে করুন অসম্মান, অবমাননা আরঅবহেলা বয়ে নিয়ে বেড়াতে হবে আজীবন।

    তোমাকে একা থমকে দাঁড়িয়ে দেখতে হবে রেসের ময়দানে তুমি বাতিল মাল।।এখানে কোন মানুষ নেই, সবাই চাবি দেয়া মেশিনের মতন ছুটে চলেছে। মানুষের হৃদয়ের বদলে কোন এক প্রোগ্রাম সেট করে দেয়া হয়েছে।শুধু অবয়ব গুলো রয়ে গেছে। মন, হৃদয়, সম্পর্কগুলো যেন ডিলিট হয়েগেছে।’

    রিয়ার সুরের আর ভাবনার জগতে ছেদ পড়লো পাশে বসা তাঁর স্বামীর টেলিফোনকথোপকথনে।অনেক দিন পর সে তাঁর ছোটবেলার এক প্রিয় বন্ধুকে ফোন দিয়েছে।

    কিন্তু তাদের কথায় বন্ধুত্বের কোন আনন্দ দেখা গেলনা।অপর প্রান্ত থেকে এমন কিছু বলছিল যা শুনে তাঁর স্বামীর মুখটা মলিন হয়েগেল, কথাবার্তার এক পর্যায়ে তাঁকে বেশ অস্থির বোধ করতে দেখা গেল।অপর প্রান্ত থেকে রেসের ময়দানে সে কতটা এগিয়ে গেছে সেই গল্প শুনতে শুনতে তাঁর পিছিয়ে পরা স্বামীর হতাশ মুখ আর নিজের সম্মান বাঁচানো কিছু কথা রিয়া কে আবার তাঁর সুরের জগত থেকে এই দুঃস্বপ্নসম অদ্ভুত জগতে ফিরিয়ে নিয়ে আসে।

    -মনস্বিতা বুলবুলি

    মনস্বিতা বুলবুলির-অন্যান্য লেখা গুলি

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১