• শিরোনাম

    বন্যার কারণে ঢাকার কাঁচা বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়ছে

    দি গাংচিল ডেস্ক | ২২ আগস্ট ২০২০


    বন্যার কারণে ঢাকার কাঁচা বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়ছে

    ভারী বৃষ্টিপাত এবং সাম্প্রতিক বন্যায় সারা দেশে সরবরাহ চেইন ব্যাহত হওয়ায় রাজধানীতে সবজিসহ বিভিন্ন প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম দ্রুত বেড়ে চলেছে।

    পাইকার ও খুচরা বিক্রেতারা জানিয়েছেন, বন্যার কারণে উৎপাদন ও সরবরাহ কমে যাওয়ায় দাম বেড়েছে। এছাড়াও করোনাভাইরাস দেশের সমস্ত ব্যবসায়িক কার্যক্রম ব্যাহত করেছে।


    পুরান ঢাকার সবজি বিক্রেতা আনিসুর রহমান জানান, প্রতি কেজি সবুজ মরিচ ২০০-২২০ টাকায়, বেগুন ৭০-৮০ টাকায়, টমেটো ১০০-১২০ টাকায়, আলু ৪০ টাকায় বিক্রি হয়েছে, যা আগের  তুলনায় বেশি।

    তিনি আরোও বলেন,  “গত সপ্তাহে সবুজ কলা (চার টুকরো) ২০-২৪ থেকে বেড়েছে, পেঁপে প্রতি কেজি ৪০-৫০ টাকা, আলু ৩০ টাকা থেকে বেড়ে ৪০ টাকা,  শিম ৮০ টাকা এবং পটল ৫০-৬০ টাকা হয়েছে”।আনিসুর বলেন, “সরবরাহ সাভাবিক হলে দাম কমবে”।


    কারওয়ান বাজারের একটি সবজির স্টোরহাউসের মালিক সোবহান তালুকদার জানান, উৎপাদনের অভাবের কারণে চাহিদা অনুযায়ী পর্যাপ্ত সবজি তিনি পাচ্ছেন না।তিনি আরও বলেছিলেন “করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যেও  ব্যবসায় বন্যার প্রভাব পড়ছে”।

    ওই এলাকার দোকানদার বিল্লাল হোসেন জানান, বন্যার কারণে বা মিলারদের দ্বারা সৃষ্ট গোপনীয় কারণে এক কেজি চালের দাম এক সপ্তাহের তুলনায় ২-৩ টাকা বেড়েছে।


    “দাম বাড়ানো নির্ভর করে পাইকারি বাজারের উপর। মিলার বা পাইকাররা যদি দাম বাড়ায় তবে খুচরা বিক্রেতাদেরও কিছুটা লাভ নিয়ে বেশি দামে বিক্রি করতে হবে। ”

    বিল্লাল জানান, আজ শুক্রবার তিনি মোটা চাল বিক্রি করছেন ৪০-৫২ টাকায় জ্ররিমানা চাল ৫৫-৬২ টাকায় যা এক সপ্তাহ আগের তুলনায় বেশি।

    সরকার পরিচালিত ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) তথ্য অনুযায়ী, এক সপ্তাহ আগের তুলনায় মোটা ও জরিমানা উভয়ের দাম কেজিপ্রতি ২-৫ টাকা বেড়েছে।

    আরোও জানা যায়, “প্রতি কেজি খোলা সয়াবিন তেল দুই টাকায় ও পাঁচ লিটার বোতলজাত ১০০ টাকা বেড়েছে। এছাড়াও প্রতি কেজি মসুরের দাম ৫০-১৫০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে, ”

    একজন সাধারণ ক্রেতা অভিযোগ করেন, এক সপ্তাহ আগের তুলনায় সর্বাধিক প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বেড়েছে। ব্যবসায়ীরা সবসময় দাম বাড়ানোর উপলক্ষ খোঁজে। এখন তারা বন্যা এবং করোনাভাইরাসকে কারন হিসেবে দেখাচ্ছে এবং এজন্য তারা অতিরিক্ত মুনাফা আদায় করছে।

    মাছ বাজার ঘুরে দেখা যায়,ইলিশের দাম এখনও স্থিতিশীল  রয়েছে।তবে অন্যান্য মাছের দাম কিছুটা বেড়েছে।

    বেসরকারী চাকরিজীবী শামসুল আলম বলেন, করোনা মহামারিটি তার আয়ের পরিমাণ ৩০ শতাংশ কমিয়েছে তবে জীবন ধারনের ব্যয় বেড়েছে।তিনি বলেন, “আমাদের আয় কিছুটা হ্রাস পাওয়ায় আমরা শহরে টিকে থাকার জন্য অনেক চাপের মধ্যে আছি।এর মধ্যে প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধি আমাদের জন্য আরও অতিরিক্ত চাপের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

    তিনি আরও বলেন, অন্যান্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়লেও ব্রয়লারের দাম কিছুটা কমেছে। এটি স্বল্প আয়ের মানুষের পক্ষে ভাল। সকল সেক্টর নিয়ন্ত্রণ করতে সরকারের উচিত সঠিকভাবে নজরদারি করা”।।

    কৃষিমন্ত্রী ডক্টর মুহাম্মদ আবদুর রাজ্জাক বলেছেন, এ বছর বন্যায় ১.৮৮ লক্ষ হেক্টর জমিতে ফসলের ক্ষতি হয়েছে, যার ফলে ১,৩৩৩ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। রাজ্জাক আরও বলেন, “বন্যায়  ফসলের ক্ষয়ক্ষতি পুনরুদ্ধারের জন্য সরকার ইতোমধ্যে বিভিন্ন পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে”।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    দেশ এগিয়ে গেছে বহুদূর

    ১৮ জানুয়ারি ২০২১

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০৩১