• শিরোনাম

    বার্সার জালে বায়ার্ন এর দুই হালি গোল

    সুজিত মন্ডল | ১৫ আগস্ট ২০২০


    বার্সার জালে বায়ার্ন এর দুই হালি গোল

    জার্মান চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন মিউনিখ গতকাল রাতে চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের ম্যাচে ৮-২ ব্যবধানের দুর্দান্ত এক জয়ে বার্সেলোনাকে উড়িয়ে দিয়েছে। গতিময় ফুটবলের পসরা সাজিয়ে বার্সেলোনার ডিফেন্ডার নিয়ে এক প্রকার ছেলেখেলাই করলেন বায়ার্ন এর ফরোয়ার্ডেরা।

    খেলার মাত্র তিন মিনিটের সময় গোল পেয়ে এগিয়ে যায় বায়ার্ন। ইভান পেরিসিচ বাম দিক থেকে ডি-বক্সের ভেতরে থাকা থমাস মুলারকে বল পাস দেন। মুলার বল বাড়ান সম্মুখে থাকা লেভানডফস্কির উদ্দেশ্যে। নিজেদের ভেতরে বল পাল্টাপাল্টি করে বিপদজনক জায়গায় আবার বল পেয়ে যান মুলার। আর এবার সুযোগকে কাজে লাগান মুলার। জোরালো শটে বল জালে জড়িয়ে দলকে এগিয়ে নেন তিনি।


    অতিরিক্ত রক্ষণাত্মক ভঙ্গিতে খেলতে থাকা বায়ার্ন ম্যাচের ৭ম মিনিটের সময় গোল খেয়ে বসে। তবে গোলটি হয় আত্মঘাতী। ডি-বক্সের ভেতরে বার্সেলোনার জোর্ডি অ্যালবার পাস থেকে বল পেয়ে যান লুইস সুয়ারেজ। তাকে প্রতিহত করতে গিয়ে বায়ার্ন ডিফেন্ডার ডেভিড অ্যালবা নিজেদের জালে বল জড়িয়ে দেন। এই গোলের মাধ্যমে ম্যাচে সমতায় ফেরে বার্সেলোনা।

    ২১ তম মিনিটের সময় দ্বিতীয় গোলের দেখা পায় বায়ার্ন। ডি-বক্সের ভেতর থেকে ইভান পেরিসিচ মাটি গড়ানো জোরালো শটে গোলটি করেন। পেরিসিচের শট বার্সেলোনা গোলরক্ষক টার সেগেনের পায়ে লেগে বল জালে জড়িয়ে যায়।


    তার ঠিক ছয় মিনিট পরে তৃতীয় গোল পায় বায়ার্ন। বার্সেলোনার ডিফেন্ডার দের দূর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে বায়ার্নের লিওন গোরেতজার বাড়ানো বল থেকে দুর্দান্ত শটে গোলটি করেন সার্জে গ্নাবরি।

    ম্যাচের ৩১ তম মিনিটের সময় ৪-১ গোলের লিড নেয় বায়ার্ন। বাম দিক থেকে জসুয়া কিমিচের বাড়ানো বল ডি-বক্সের ভালো জায়গায় পেয়ে যান থমাস মুলার। আর সেই বল থেকেই স্কোরলাইন বৃদ্ধি করেন মুলার।


    ৪-১ গোলের ব্যবধানে এগিয়ে থেকে প্রথমার্ধ শেষ করে বায়ার্ন। যদিও পাঁচটি গোলের সবগুলোই তখন বায়ার্ন দিয়েছে।

    বিরতির পরে খেলায় ফেরার চেষ্টা করে বার্সেলোনা। সেই সুবাদে ৫৭ তম মিনিটের সময়ে দ্বিতীয় গোলের দেখা পায় তারা। মেসির লম্বা পাস থেকে বল পেয়ে জর্দি আলবা সেটা বাড়িয়ে দেন সুয়ারেজের উদ্দেশ্যে। দারুণ কৌশলে ডিফেন্ডারদের বোকা বানিয়ে বল জালে জড়ান সুয়ারেজ। এই গোলে খানিকটা আশার আলো দেখতে পায় বার্সেলোনা।

    তার ঠিক ৬ মিনিট পরেই বার্সা শিবিরে পূণরায় আঘাত হানে বায়ার্ন। আলফনসে ডাভিসের অসাধারণ নৈপুণ্যে বার্সার ডিফেন্ডার নেলসন সেমেদো হতবিহ্বল হয়ে পড়েন। তাকে বোকা বানিয়ে ডাভিস ডি-বক্সের ভেতরে বল বাড়ান কিমিচের উদ্দেশ্যে। গোল লাইনের খুব কাছ থেকে পাওয়া বল কাজে লাগিয়ে বল জালে জড়ান কিমিচ। তবে এই গোলের পেছনে সব থেকে বড় ভূমিকা পালন করেছেন ডাভিস। ম্যাচের স্কোরলাইন তখন ৫-২।

    ম্যাচের ৮২ তম মিনিটের সময় গোল করেন বায়ার্ন দলের হট ফেভারিট লেভানডফস্কি। বদলি হিসেবে মাঠে নামা কৌতিনহোর বাড়ানো বলে দুর্দান্ত হেড করে দলের হয়ে ছয় নম্বর গোল করেন লেভানডফস্কি। সেই সাথে ম্যাচে বায়ার্ন ৬-২ গোলের লিড নেয়।

    দ্বিতীয়ার্ধে বদলি হিসেবে নামা কৌতিনহো ৮৫ এবং ৮৯ মিনিটে দলের হয়ে পরবর্তী দুই গোল করেন। দুই গোল এবং এক এসিস্ট করে নিজের সাবেক দল বার্সেলোনার হতাশায় নতুন মাত্রা যোগ করেন। তবে দুইটি গোল করা সত্বেও কোনো গোলেই উদযাপন করেননি কৌতিনহো।

    অবশেষে রেফারির বাঁশিতে ৮-২ গোলের ব্যবধান নিয়ে মাঠ ছাড়ে দুই দল।

    চ্যাম্পিয়নস লিগের নক আউট পর্বে ৮ গোল হজম করা প্রথম দল বার্সেলোনা। এই অনাকাঙ্ক্ষিত ম্যাচ অনেকদিন কাঁটার মতো বিধে থাকবে তাদের স্মৃতিতে।

    ম্যাচের পুরোটা সময়েই নিস্প্রভ ছিলেন ছয়বারের বর্ষসেরা ফুটবলার লিওনেল মেসি। নিজেকে যেন মেলে ধরতেই পারলেন না তিনি। তাই বড় পরাজয়ের হতাশা নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় তাকে।

    বার্সেলোনা এবং বায়ার্ন মিউনিখ দুই দলই পাঁচবার ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। তবে, যদিও বায়ার্ন আগামী সপ্তাহে ষষ্ঠ শিরোপা যুক্ত করার সুযোগ রয়েছে বায়ার্ন এর সামনে।

    বার্সার এই পরাজয়ের কারণে কোচ হিসেবে দায়িত্ব হারাতে পারেন কিকে সেতিয়েন। সেই সাথে পরাজয়ের কারণ হিসেবে যুক্ত কতজন ফুটবলার ক্লাব থেকে বিদায় নেবেন সেটাই দেখার বিষয়।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    বিদায় ফুটবল ঈশ্বর!

    ২৫ নভেম্বর ২০২০

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১