• শিরোনাম

    রাতে নিয়ে গেল পুলিশ, সকালে লাশ পাওয়া গেল বিলে!

    দি গাংচিল ডেস্ক | ১৫ আগস্ট ২০২০


    রাতে নিয়ে গেল পুলিশ, সকালে লাশ পাওয়া গেল বিলে!

    রাজবাড়ীর কালুখালীতে গভীর রাতে রবিউল বিশ্বাস (৩৫) নামে এক যুবককে পুলিশ বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে যাওয়ার পর সকালে পার্শ্ববর্তী একটি বিলে তার লাশ পাওয়া গেছে। পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে, কালুখালী থানার এসআই ফজলুল হক রাতে রবিউলকে ধরে নিয়ে সন্ত্রাসীদের হাতে তুলে দেয় ।

    ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ীর কালুখালী থানার মাজবাড়ি ইউনিয়নের বেতবাড়িয়া গ্রামে। রবিউল ছিলেন বেকারি ব্যবসায়ী এবং স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা। মাদক ব্যবসায় বাধা দেয়ার কারনে তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে জানান এলাকাবাসী।


    তবে রবিউলকে গ্রেপ্তারের পর সন্ত্রাসীদের হাতে তুলে দেওয়ার যে অভিযোগ করা হয়েছে তা অস্বীকার করেছে পুলিশ ।

    নিহত রবিউল এর বোন মাজবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত নারী সদস্য আমেনা বেগম জানান, একটি তুচ্ছ ঘটনায় রবিউলসহ চারজনের বিরুদ্ধে কালুখালী থানায় একটি মারামারির মামলা দায়ের করা হয়।


    শুক্রবার রাত ২টার দিকে কালুখালী থানার এসআই ফজলুলসহ তিন পুলিশ এবং এলাকার কয়েকজন সন্ত্রাসী তাদের বাড়িতে আসে। ঘরের দরজা-জানালা ভাঙচুর করে এবং তার ভাইয়ের স্ত্রীকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এরপর তার দুই ভাই রবিউল ও আকতারকে ধরে নিয়ে সন্ত্রাসীদের হাতে তুলে দেয় পুলিশ।

    কোন রকমে পালিয়ে আকতার বাঁচতে পারলেও রবিউলকে হত্যা করা হয়। ১৫ আগস্ট, শনিবার সকালে বাড়ির কাছের একটি খালে তার ভাইয়ের লাশ পাওয়া যায়।


    নিহতের স্ত্রী জানান, গতকাল রাত ২টার দিকে  তিন দুর্বৃত্ত- রফিক, ইলিয়াস ও রাকিব তাদের বাড়িতে আসে। এ সময় পুলিশও তাদের সঙ্গে ছিল। তার স্বামীকে পুলিশ ধরে নিয়ে যায়। সকালে তার লাশ পান। তিনি স্বামী হত্যার বিচার দাবি করেন। এলাকাবাসী জানায়,  ইলিয়াস ,  রফিকও রাকিব মাদক কারবারে জড়িত। তারাই রবিউলকে হত্যা করেছে।

    নিহতের বড় ভাই জানান, বিএনপি থেকে যোগ দেয়া নব্য আওয়ামীলীগ ইউসুফ মেম্বার এর লোকজন তার ভাইকে হত্যা করেছে।

    শনিবার সকালে এসআই ফজলুলসহ আরও তিন পুলিশ  ঘটনাস্থলে যাওয়ার পর জনতা  বিক্ষুব্ধ  হয়ে তাদের অবরুদ্ধ করে রাখে। ওই সময় উত্তেজিত জনতা ফজলুল ও  ইউসুফ মেম্বার এর বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকে এবং বিচার দাবি করেন। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কালুখালী থানার ওসি কামরুল ইসলাম একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে অবরুদ্ধ তিন পুলিশ সদস্যকে উদ্ধারের চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হন।

    পরে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের খবর দিলে ১১টার দিকে রাজবাড়ী থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বিক্ষুব্ধ জনতার ওপর লাঠিচার্জ করে তাদের তিন সহকর্মীকে মুক্ত করে।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    বিদায় ফুটবল ঈশ্বর!

    ২৫ নভেম্বর ২০২০

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০৩১