• শিরোনাম

    সুইডেনে কোরআন পোড়ানোর প্রতিবাদে মুসলিমদের বিক্ষোভ, পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ!

    দি গাংচিল আন্তর্জাতিক ডেস্ক | ৩০ আগস্ট ২০২০


    সুইডেনে কোরআন পোড়ানোর প্রতিবাদে মুসলিমদের বিক্ষোভ, পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ!

    সুইডেনের দক্ষিণের শহর মালমোতে কোরআন পোড়ানোর প্রতিবাদে শহরের ক্ষুব্ধ মুসলিমরা বিক্ষোভ করেছে যা এক পর্যায়ে দাঙ্গায় রুপ নেয়। ঘটনাটি ঘটে শুক্রবার (২৮ আগস্ট) সন্ধ্যায়। প্রায় শ’ তিনেক মানুষ ওই বিক্ষোভে অংশ নেয়। তাদের অধিকাংশই তরুণ। বিক্ষোভস্থল থেকে প্রায় ২০ জনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

    পুলিশের এক মুখপাত্র জানান, শুক্রবার দাঙ্গাকারীরা টায়ারে আগুন ধরিয়ে তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং পুলিশ কর্মকর্তাদের দিকে বিভিন্ন ঢিল বা পাথর জাতীয় বস্তু ছুড়ে মারেন। রোজেনগার্ড সেন্ট্রাম শপিং সেন্টারের দক্ষিণে মালামির এমিরালসগাটান রাস্তায় দাঙ্গাকারীরা বাসের আশ্রয়কেন্দ্রগুলি ভেঙে ফেলে, ল্যাম্পপোস্টগুলি উল্টে দেয় এবং বিলবোর্ড ধ্বংস করে দেয়।


    গ্রেপ্তারকৃত সবাইকে শনিবার সকালে মুক্তি দেওয়া হয়। পুলিশ স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছে প্রায় ১৩ জনের বিরুদ্ধে দাঙ্গা অপরাধের অভিযোগ আনা হতে পারে এব তারা বর্তমানে কয়েকজন ব্যক্তির সন্ধান করছে যারা সন্দেহজনকভাবে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভে যুবক-যুবতীদেরকে সহিংসতায় পরিণত করার জন্য উৎসাহিত করেছিল।

    পুলিশ জানায় দেশটির তৃতীয় বৃহত্তম শহর মালমোর অভিবাসী অধ্যুষিত রোজেনগার্ড শহরতলীতে কোরান পোড়ানোর এই ঘটনা ঘটে।

    ডেনমার্কের কট্টর দক্ষিণপন্থী রাজনীতিক রাসমুস পালাদুন কোরান পোড়ানোর ওই ঘটনায় অংশ নিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সুইডিশ পুলিশ ঐ স্থানে পৌছানোর আগেই তাকে গ্রেপ্তার করে। তবে তার সমর্থকরা এরপরও কোরআন পোড়ানোর এই ঘটনায় অংশ নেয়। এই ঘটনাটি ঘটে শুক্রবার দিলেন বেলায়।


    রাসমুস পালাদুন কট্টর দক্ষিণপন্থী স্ট্রাম কুর্স দলের নেতা। ডেনমার্কে বর্ণবাদ এবং অন্যান্য অপরাধে তাকে এক মাসের জেল দেয়া হয়েছিল। তার দলের সোশ্যাল মিডিয়া চ্যানেলে ইসলাম বিরোধী ভিডিও পোস্ট করার অভিযোগে তার সাজা হয়।

    রাসমুস পালাদুন শুক্রবারের এই অনুষ্ঠানে মুসলিমদের প্রধান সাপ্তাহিক প্রার্থনা হিসাবে অনুষ্ঠিত হওয়া শুক্রবারের অনুষ্ঠানের দিন মালমোতে বক্তব্য রাখতে যাচ্ছিলেন।


    কিন্তু কর্তৃপক্ষ তাকে দু বছরের জন্য সুইডেনে প্রবেশ নিষিদ্ধ ঘোষণা করে এই ঘোষণা দিয়ে পালাদুন আগমনের আগেই ঐ অনুষ্ঠানস্থল খালি করে দেয়। পরে তাকে মালমোর কাছে গ্রেপ্তার করা হয়। তবে তার সমর্থকরা এই সমাবেশে গিয়েছিল, এই সময় জাতিগত বিদ্বেষ প্ররোচিত করার জন্য ছয়জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

    মালমোর পুলিশের মুখপাত্র কলি পারসন এএফপিকে বলেছেন “আমরা সন্দেহ করি যে তিনি সুইডেনে আইন লঙ্ঘন করতে চলেছেন, এমন একটি ঝুঁকিও ছিল যে তার আচরণ … সমাজের জন্য হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়াবে।”

    পরে পালাদুন ফেসবুকে এক চরম স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সে লিখেছেন, “সুইডেন থেকে আমাকে ফেরত পাঠানো এবং দু’বছরের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তবে ধর্ষক এবং হত্যাকারীরা সর্বদা স্বাগত!”

    মালমো ৩,২্‌০,০০০ বাসিন্দাদের একটি শিল্প নগরী। এই শহরে প্রচুর মুসলিম অভিবাসি বসবাস করে। মুলত এ কারনেই এই এলাকায় দাঙ্গাতি ঘটছে। দাঙ্গাটি সন্ধ্যা সাতটার দিকে শুরু হয়েছিল এবং সকাল, ৩ টা অবধি অব্যাহত ছিল।

    অফিস থেকে কাজ শেষে এক যুবক রোজেনগার্ডের নিজের বাড়িতে ফিরে আসার সময় বাধা পেয়েছিলেন, তার হতাশা ব্যাক্ত করে বলছিলেন “এটি কেবল বোকারাই করতে পারে, এ থেকে ভাল কিছুই আসতে পারে না।” তিনি পাথর নিক্ষেপকারীদের দিকে ইঙ্গিত করে বলছিলেন “যদি সেখানে ৩০০-৪০০ থাকতে পারে, তাদের মধ্যে সর্বাধিক পাঁচ জনই মুসলিম। কেন জানেন? কারণ একজন সত্যিকারের মুসলমান এটি করেন না। ”

    সুইডেনের রাজনীতিবিদরা বলেছেন, মানবাধিকারের বিষয়টি সবার জন্য সমান আপনি যা চান তা করতে পারেন কারণ আপনি একটি স্বাধীন দেশে বাস করেন। তবে, আপনি মসজিদের সামনে কোরান পোড়াতে পারেন। এটি এরকম নয়। এটি বহু লোককে প্রভাবিত করবে এবং আমরা আরও বিভক্ত হয়ে যাব।

    সূত্রঃ www.thelocal.se

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১