• শিরোনাম

    খুলে দেয়া হচ্ছে বান্দরবানের পর্যটন

    দি গাংচিল ডেস্ক | ০৯ আগস্ট ২০২০


    খুলে দেয়া হচ্ছে বান্দরবানের পর্যটন

    করোনা পরিস্থিতির মধ্যে আগামী ১৭ আগস্ট থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে  বান্দরবানের সরকারি-বেসরকারি সব পর্যটনকেন্দ্র ও আবাসিক হোটেল-মোটেল খুলে দেওয়া হচ্ছে। রোববার এ–সংক্রান্ত আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়া হতে পারে বলে বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে।

    গত মার্চের মাঝামাঝি সময় থেকে মহামারী করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে বান্দরবান জেলার সকল পর্যটনকেন্দ্র ও আবাসিক হোটেল-মোটেল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। সেই সময় থেকে প্রায় পাঁচ মাস ধরে বন্ধ রয়েছে সেখানকার পর্যটন শিল্প।


    জেলা প্রশাসনের সূত্রে জানা গেছে, জেলায় করোনাভাইরাস এর প্রকোপ আগের চেয়ে কিছুটা কমে এসেছে। এছাড়া সরকারের পক্ষ থেকে চিটাগং, কক্সবাজার, রাঙামাটিসহ পার্শ্ববর্তী জেলাগুলোতে অবস্থিত পর্যটনকেন্দ্রগুলো খুলে দেওয়ার জন্য উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

    এসব বিষয় চিন্তা করে বান্দরবানেও আগামী ১৭ আগস্ট থেকে পর্যটনকেন্দ্র, হোটেল-মোটেল খুলে দেওয়ার ব্যাপারে নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পর্যটন এর সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের আগাম প্রস্তুতির জন্য ‘করোনাও থাকবে, পর্যটনও চলবে’, এ রকম অভিযোজনমূলক নির্দেশনা  দেওয়া হতে পারে আগামীকালের ঘোষণায়।


    বান্দরবানের জেলা শহর এবং থানচি, রুমা,আলীকদমসহ অন্যান্য  উপজেলাগুলোতে পর্যটন মৌসুমে দৈনিক পাঁচ হাজারের বেশি পর্যটক আসেন।  আবাসিক হোটেল-মোটেল,  ট্যুরিস্ট গাইড, গাড়িচালক ও চালকের সহকারী বা খাবারের দোকানের কর্মচারী, সব মিলিয়ে কয়েক হাজার লোকের কর্মসংস্থান হয়ে থাকে এই পর্যটন শিল্প থেকে।  এখন তাঁরা সবাই বাড়ীতে বেকার বসে আছেন।

    পর্যটন ব্যবসায়ী কাজল কান্তি দাশ জানান, পাঁচ মাস ধরে কোনো প্রকার ইনকাম ছাড়া কর্মচারীদের বেতন-ভাতা দিতে হচ্ছে। পর্যটন খুলে দিলে মালিকদের লাভ না হোক, কর্মচারীদের চালানোর মতো ব্যবসা হলেও কিছুটা সাশ্রয় হবে।


    আবাসিক হোটেল-মোটেল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম বলেন, এ জেলায় কর্মসংস্থান ও আয়ের বড় অংশ আসে পর্যটন থেকে। পর্যটনের আর্থিক শৃঙ্খলায় একজন পর্যটকের থেকে  ১১ শ্রেণির পেশাজীবী মানুষ কোন না কোনভাবে উপকৃত হন। সে হিসাবে বান্দরবানে যদি প্রতিদিন গড়ে ৫ হাজার পর্যটক আসে তবে তার সঙ্গে ৫৫ হাজার মানুষের আয়রোজগারের বিষয় জড়িত।

    বান্দরবানের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শামীম হোসেন বলেন, ‘যেহেতু  প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস খুব শীঘ্রই পুরোপুরি যাচ্ছে না, তাই ভাইরাসটির সঙ্গে অভিযোজন করে বাঁচতে হবে আমাদের। সেদিক বিবেচনায় দেশের অন্যান্য জেলার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে বান্দরবানেও পর্যটন আবার চালু করা হবে, তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ব্যাপারে কড়া নজরদারি থাকবে।’

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    ঘুরে আসুন দিনাজপুর

    ১৩ জুলাই ২০২০

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২
    ১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
    ২০২১২২২৩২৪২৫২৬
    ২৭২৮২৯৩০৩১