• শিরোনাম

    দিনাজপুর পৌরসভার বহুপ্রতিভাধর সাবেক চেয়ারম্যান মকবুল হোসেন

    নির্ণয় চৌধুরী, জেলা প্রতিনিধি, দিনাজপুর | ২৪ আগস্ট ২০২০


    দিনাজপুর পৌরসভার বহুপ্রতিভাধর সাবেক চেয়ারম্যান মকবুল হোসেন

    বর্তমান যুগে অনেক বড় বড় ব্যবসায়ী রাজনীতিবিদ দেখা যায়। কিন্তু বহুমুখী প্রতিভার রাজনীতিক এখন পাওয়া খুব কঠিন। তবে এমন একটা সময় ছিল যখন বহুমুখী প্রতিভা বান ব্যক্তিরা রাজনীতি তে যুক্ত হয়ে দেশ সমাজের কল্যাণে নিয়োজিত হতেন। দিনাজপুর পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ পন্থী নেতা মকবুল হোসেন ছিলেন এমনই এক রাজনীতিবিদ।

    দিনাজপুর শহরের মুন্সীপাড়া মহল্লায় ১৯২০ সালে মকবুল হোসেন জন্মগ্রহণ করেন এক বিখ্যাত পরিবারে।তার পিতার নাম ছিলো মাহরামাত হোসেন। তার পরিবার ছিল সাংস্কৃতিমনা ও উদারপন্থী পরিবার। দিনাজপুর শহরে ব্রিটিশ আমলে হাতে গোনা কয়েকটি মুসলিম পরিবার আদি বনেদী পরিবার বলে পরিচিত ছিলো। মকবুল
    হোসেনের পরিবার তার মধ্যে অন্যতম।
    .
    মকবুল হোসেন দিনাজপুর থেকে মেট্রিকুলেশন পাস করেন,এরপর এসএন কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েট পাস করেন।পরবর্তী সময়ে তিনি “ল” পাস করেন এবং দিনাজপুর বারে এডভোকেট হিসেবে তার কর্মজীবন শুরু করেন।
    .
    সেই ব্রিটিশ আমলে অধিকাংশ মুসলমান ধর্মের গোঁড়ামি বা অন্ধবিশ্বাসের মধ্যে জীবনযাপন করতো আবার সেই সব কুসংস্কারপূর্ণ জীবন যাপন নিয়ে তারা অহংকার /বড়াই করতো এবং পালাগান, যাত্রাথিয়েটার,মঞ্চনাটক, গানবাজনা ইত্যাদি বিনোদনমূলক বিষয় কে খুব পাপ এবং অনাচার বলে মনে করতো। সেই সময়ে মকবুল হোসেনের পিতা মাহরামাত সাহেব ও তার পরিবার, মুন্সীপাড়ার আফতাবউদ্দীন মোক্তার ও নিমুমিঞার পরিবার এবং আরো দু একটি মুসলিম পরিবারের সদস্যরা আধুনিক বিনোদন সম্পর্কে উদার মনোভাব পোষণ করতেন।নাট্যসমিতির সাথে তাদের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিলো।সে কারণে বংশগত ভাবেই মুক্ত ভাবধারার প্রত্যক্ষ উত্তরাধিকারীত্ব ছিলো মকবুল হোসেনের মধ্যে।মকবুল হোসেন কিশোর বয়স থেকেই মঞ্চ অভিনয় এর সাথে যুক্ত হন।


    নগর কোতোয়ালের চরিত্রে তার নাটকে হাতে খড়ি হয়।তিনি অসংখ্য মঞ্চ নাটকে অভিনয় করেন। টিপু সুলতান নাটকে জ্যোতিষীর ভূমিকায় এবং সুবচন নির্বাসনে বাবার চরিত্রে অভিনয় করে প্রচুর সুনাম অর্জন করেন। নিষ্ঠাবান অভিনেতা, দক্ষ নাট্যসংগঠক ও অভিষ্জ মঞ্চ পরিচালক মকবুল হোসেনের সঙ্গে দিনাজপুরের নাট্যাভিনয় এমন ওতপ্রোতভাবে মিশ্রিত যে এমন এক সময় ছিল যখন মকবুল হোসেন ছাড়া দিনাজপুরের নাট্যাভিনয় এর কথা ভাবতেই পারা যেতো না। যেমন দিনাজপুরের পাঠাগার আন্দোলনকে ভাবতে পারা যায় না হেমায়েত আলী ছাড়া,দিনাজপুরের ইতিহাস ও যাদুঘর আন্দোলনের কথা ভাবতে পারা যায়না মেহেরাব আলীকে ছাড়া এই তিন মহান ব্যক্তি স্বমহিমায় দিনাজপুর এর কিংবদন্তি।

    দিনাজপুর এর সংস্কৃতিক পরিমন্ডলে সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টি ও নাট্যাভিনয়ে আধুনিকায়নের অন্যতম বাস্তববাদী স্বপ্নিক ছিলেন দিনাজপুর নাট্যশালার সুদীর্ঘকালীন কর্ণধার মকবুল হোসেন। পাকিস্তানি আমলে ভেঙে পড়া নাট্যাভিনয় কে পুনর্গঠন কাজে তার দক্ষতা ও আপ্রাণ পরিশ্রমের সাফল্য তাকে বৃহত্তর দিনাজপুরে স্মরণীয় করে রাখবে। বহুগুণের সমাবেশ ছিলো মকবুল হোসেনের জীবনে। পেশাগত জীবনে মকবুল হোসেন ছিলেন নামকরা আইনজীবী। সাংস্কৃতিক জগতে তিনি ছিলেন বিখ্যাত মঞ্চঅভিনেতা। রাজনৈতিক জীবনে প্রখ্যাত আওয়ামী লীগ পন্থী নেতা। আর দিনাজপুরের জনতার মনে তিনি ছিলেন একজন বিশিষ্ট সমাজসেবক।


    .
    মকবুল হোসেন ১৯৫২ সালে দিনাজপুর পৌরসভা নির্বাচন এ কাউন্সিলর পদে বিজয়ী হল। এরপর জনাব মকবুল হোসেন ১৯৫৫ সালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্ট এর প্রার্থী হিসেবে বিনাপ্রতিদ্বন্বীতায় দিনাজপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তার আমলের পৌরকমিটির সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন যারাঃ

    ০১/মকবুল হোসেন–চেয়ারম্যান
    ০২/ অধ্যাপক আব্দুল হক–ভাইস চেয়ারম্যান
    ০৩/মোহাম্মদ হোসেন–সদস্য
    ০৪/গোলাম রহমান–সদস্য
    ০৫/আবদুল ওয়াহেদ–সদস্য
    ০৬/এ বি এম আব্বাস–সদস্য
    ০৭/মাসুদ হোসেন–সদস্য
    ০৮/গোপী কিশন দাগা–সদস্য
    ০৯/ধীরেন্দ্র নারায়ন ঘোষ–সদস্য
    ১০/সুরেশ চন্দ্র সেন–সদস্য
    ১১/গোপাল চন্দ্র ভৌমিক–সদস্য
    ১২/তোজাম্মেল হোসেন –সদস্য
    ১৩/আছির উদ্দিন আহমদ–সদস্য
    ১৪/আফতাবউদ্দিন আহমদ–সদস্য
    ১৫/আব্দুর রশিদ চৌধুরী–সদস্য
    ১৬/এস সি রায় চৌধুরী –সদস্য


    কিন্তু যুক্তফ্রন্ট দলীয় পৌরসভার কার্যকাল এর তিন বছর পূর্ণ না হতেই ১৯৫৮ সালের অক্টোবর মাসে দেশে সামরিক শাসন জারি ও সামরিক সরকার গঠিত হয়।ফলে পৌরসভার সায়ত্বশাসন ব্যবস্থা বাতিল করা হয়। এবং কমিটি ভেঙ্গে দেয়া হয়। মকবুল হোসেন নাট্যকর্মী, পৌরচেয়ারম্যান, আইনজীবী ছাড়াও একজন সমাজসেবক ছিলেন। এই বহুপ্রতিভাধর ব্যক্তি ১৯৯৯ সালে দিনাজপুরে মৃত্যুবরণ করেন। তাকে দিনাজপুর শহরের সোনাপীর কবরস্থানে সমাহিত করা হয়।

    .
    সূত্রঃমেহেরাব আলী (দিনাজপুরের ইতিহাস সমগ্র-০৫)
    এম এ কাফী সরকার (দিনাজপুরের ইতিহাস ও ঐতিহ্য।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১