• শিরোনাম

    নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করেছেন কাজী সালাউদ্দিন

    সুজিত মন্ডল | ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০


    নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করেছেন কাজী সালাউদ্দিন

    বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি পদে টানা চতুর্থবারের জন্য কাজী সালাউদ্দিন আগামী ৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনকে সামনে রেখে গতকাল রবিবার তার নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছেন।

    রবিবার সালাউদ্দিনের সম্মিলিত পরিষদ তার ইশতেহার প্রকাশ করতে এবং তার প্যানেলটি প্রবর্তন করতে ঢাকার একটি হোটেলে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। সালাউদ্দিনের সর্বশেষ প্যানেলের বেশিরভাগ সদস্য এখনও তার সাথে রয়েছেন এবং বাকি অনেক সদস্য নির্বাচন থেকে বেরিয়ে এসেছেন।

    দেশের ফুটবল ইতিহাসের উজ্জ্বল তারকা সালাউদ্দিন ২০০৮ সালে প্রথমবারের মতো বাফুফে’র প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। তিনি ২০১২ সালের নির্বাচনেও জয়লাভ করেছিলেন এবং ঘোষণা করেছিলেন যে ২০২২ সালের কাতার বিশ্বকাপ খেলার যোগ্যতা অর্জনের জন্য তিনি সব কিছু করবেন। কিন্তু যোগ্যতার বিচারে এটি আগের মতো অসম্ভব বলেই মনে হচ্ছে। তিনি ‘ভিশন ২০২২’ নামে একটি উদ্যোগ নিয়েছিলেন যা গত আট বছরে কেবল অধরাই রয়ে গেছে।


    যদিও সালাউদ্দিনকে এখনও শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বির মুখোমুখি হতে হয়নি এবং এর ফলে দেশের ফুটবল বিকাশ ব্যাপকভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। এই বছরেও কিছু মনোনয়ন প্রত্যাহার ও চমকের পরে, বাংলাদেশের ফুটবলে স্থগিত অগ্রগতি নিয়ে প্রচুর হতাশার সৃষ্টি হয়েছে।

    সালাহউদ্দিন বলেছেন, তার ২০২২ এর ভিশন নিয়ে বিভ্রান্তি রয়েছে। তিনি দাবি করেছেন যে তিনি কখনও বলেননি যে কাতার বিশ্বকাপে বাংলাদেশের যোগ্যতা অর্জনের লক্ষ্যে তিনি কাজ করবেন।
    সালাহউদ্দিন আজ গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ‘আমি মনে করি আপনাদের মধ্যে বিভ্রান্তি রয়েছে। আমি কখনও বলিনি যে আমরা কাতার বিশ্বকাপ খেলবো। আমরা বলেছি, আমরা খেলার চেষ্টা করবো। আমাদেরকে সবসময়ই একটি পরিকল্পনা নিয়ে এগোতে হবে’


    সালাউদ্দিন আরও যোগ করেছেন, ‘আমরা বাংলাদেশের ফুটবলের জন্য দীর্ঘমেয়াদী এবং টেকসই পরিকল্পনা চালু করতে যাচ্ছি। আমরা যদি পূনরায় নির্বাচিত হই, তবে আমরা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে আমাদের অবস্থার উন্নতির জন্য সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নেব। আমরা চেষ্টা করব বিশ্বের সেরা ১৫০ টি দলের তালিকায় উঠে আসতে। এবং একই সাথে, আমরা আমাদের নারী দলকে বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে সেরা ৯০ টি দলের মধ্যে জায়গা করে নেওয়ার জন্য আমাদের সেরা পদক্ষেপগুলোকে এগিয়ে রাখব।’

    ২০০৮ সালে সালাউদ্দিন দায়িত্ব নেওয়ার সময়, বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৮০ তে এবং বর্তমানে সেটা বেড়ে ১৮৭ তে দাঁড়িয়েছে। তিনি এই পরিস্থিতিকে ন্যায্যতা দেওয়ার চেষ্টা করে বলেছেন, ‘ফ্রান্সের দিকে দেখুন- তারা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন তবে র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে নয়। ফিফার বন্ধুত্বপূর্ণ ম্যাচগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের আর্থিক সংকট ছিল, তাই আমরা অনেক ম্যাচ খেলতে ব্যর্থ হয়েছি।’


    নতুন ইশতেহারে সালাউদ্দিন এবং তার দল গত নির্বাচনের আগে যে প্রতিশ্রুতিগুলো দিয়েছিল তার বেশিরভাগই এই ইশতেহারে পুনরাবৃত্তি করেছে। বিগত নির্বাচনে তাদের ইশতেহারে ২৫ টি পয়েন্ট ছিল। এবার সেটা বেড়ে ৩৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

    সালাউদ্দিনের ইশতেহারে বলা হয়েছে যে তারা প্রতিবছর বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপের আয়োজক, এসএএফএফ চ্যাম্পিয়নশিপ এবং এসএ গেমসের খেতাব ফিরে পেতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ রয়েছে। এর পাশাপাশি বলেছে যে, তারা হাই-প্রোফাইল কোচিং স্টাফ নিয়োগ, খেলোয়াড়দের প্রোফাইল তৈরি, ঘরোয়া ইভেন্টগুলোর জন্য নিয়মিত ক্যালেন্ডার স্থাপন এবং দেশীয় লিগের জন্য আইন গঠনে বদ্ধপরিকর। সালাউদ্দিনের প্যানেল আরও বলেছে যে, তারা আন্তর্জাতিক খেলার আয়োজন করার জন্য কমপক্ষে চারটি ভেন্যুতে সমস্ত সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করবে।

    বাফুফে’র অন্যতম দীর্ঘকালীন সভাপতি সালাউদ্দিন তার বিগত ইশতেহারের প্রতিশ্রুতিগুলোর কমপক্ষে ৭৫ শতাংশ সম্পন্ন করেছেন বলে দাবি করেছেন।

    এ ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘আমরা দুঃখিত যে আমরা বাকি কাজগুলি করতে ব্যর্থ হয়েছি। তবে এই রিপোর্টটি তিনমাস রিসার্চ করেই প্রদান করা হয়েছে। আমরা এটা নিয়ে আরও গবেষণা করছি এবং তা বাস্তবায়ন হবে। আমরা আমাদের ফুটবলকে একা এগিয়ে নিতে পারি না। এ জন্য খেলোয়াড়, কোচ, কর্মকর্তা এবং স্পনসর সবাইকে এক সাথে কাজ করতে হবে।’

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    বিদায় ফুটবল ঈশ্বর!

    ২৫ নভেম্বর ২০২০

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১