• শিরোনাম

    অনুবাদক: লিয়ানা কিবরিয়া (৮ম শ্রেণী)

    মেরি সেলেস্টের রহস্য

    | ২৬ আগস্ট ২০২১


    মেরি সেলেস্টের রহস্য

    ৫ই ডিসেম্বর, ১৮৭২ সালে ডেই- গ্রেশিয়া নামক একটি জাহাজ আটলান্টিক মহাসাগর পাড়ি দিয়ে নিউ-ইয়র্ক থেকে জিব্রালটার যাচ্ছিল। হঠ্যাৎ তারা একটি দুই মাস্তুলের জাহাজকে মহাসাগরের মাঝখানে ভাসতে দেখলেন। জাহাজটি হাওয়ার সাথে এদিক ওদিক দুলছিল। ডেই গ্রেশিয়ারের ক্যাপ্টেন অদ্ভুত জাহাজটিকে সিগনাল পাঠালেন কিন্তু কোন উত্তর পেলেন না।

    ডেই গ্রেশিয়ার ক্যাপ্টেন, সেকেন্ড মেট এবং দুজন নাবিক একটি নৌকা নামিয়ে জাহাজটির উদ্দেশ্যে যেতে লাগলেন। কাছে যেতেই জাহাজটির নাম দেখতে পেলেন| জাহাজটির নাম মেরি সেলেস্টে।


    ক্যাপ্টেন এবং সেকেন্ড মেট জাহাজটিতে উঠলেন। তারা ভেবেছিলেন জাহাজটির নাবিকরা তাদের অভ্যর্থনা জানাবেন কিন্তু অভ্যর্থনার বদলে তারা যা পেলেন তা এমন একটি রহস্য যা আজ পর্যন্ত কেউ সমাধান করতে পারেননি।

    ক্যাপ্টেন এবং সেকেন্ড মেট জাহাজটি ঘুরে দেখলেন এটি পুরোপুরি ভাবে পরিত্যাক্ত ছিল কিন্তু জাহাজটি নিজে একদম ভাল অবস্থায় ছিল। সেখানে অনেক খাবার এবং পানি ছিল, ছিল কার্গো এবং মদের ব্যারেল এবং সবকিছু ভাল অবস্থায় এবং ঠিক জায়গায় ছিল।


    মেরি সেলেস্টের ক্যাপ্টেনের রুমে তারা পেলেন একটি টেবিল যেখানে সকালের নাস্তা আধ-খাওয়া অবস্থায় পরে ছিল। সেকেন্ড মেটের কেবিনে একটি টেবিলের ওপর কাগজে আধা শেষ করা হিসাব এর খাতা পরে ছিল। একমাত্র জিনিস যেটা জাহাজ থেকে উধাও ছিল সেটা হচ্ছে জাহাজটির ক্রোনোমিটার (একটি যন্ত্র যা ন্যাভিগেশনের সময় মাপতে ব্যাবহার করা হয়)।

    ডেই গ্রেশিয়ার ক্যাপটেন সন্দেহ করছিলেন যে নাবিকরা বিদ্রোহ করে পালিয়ে গিয়ছিল কিন্তু যেহেতু লাইফবোট গুলো ঠিক জায়গায় তাই ওদের পালিয়ে যাওয়া প্রায় অসম্ভব ছিল। ওদের কি অন্য কোন জাহাজ নিয়ে গিয়েছিল? তা জানা যায়নি কিন্তু বিদ্রোহের কিছু ছাপ ছিল। একটি কেবিনে একটি রক্তাত্ত কাটলাস পাওয়া গিয়েছিল এবং ডেকের রেলিংএ রক্তের দাগ ছিল।


    মেরি সেলেস্টের লগে শেষ লেখা হয়েছিল ২৪শে নভেম্বরে। লেখা অনুযায়ী জাহাজটি এজোরস এর সেন্ট মেরি দ্বীপ এর উত্তর দিক দিয়ে যাচ্ছিল। যদি জাহাজটিকে ওখানেই পরিত্যাক্ত করা হয়ে থাকে তাহলে কোন মতেই এটি এখানে ভেসে আসতে পারেনা বিশেষ করে যেভাবে জাহাজটির পাল তোলা ছিল এবং যদি না কেউ জাহাজটিকে চালাচ্ছিল।

    একটি সরকারি অনুসন্ধানী দল এই রহস্যের একটি ব্যাখ্যা দার করেছিলেন যা ধোপে টেকেনি। তারা বলেছিলেন যে নাবিকরা জাহাজের ক্যাপটেন এবং তার পরিবারকে মেরে পানিতে ফেলে পালিয়ে গিয়েছে কিন্তু জাহাজে কোন মারামারি বা চুরির চিহ্ন ছিল না।

    এই রহস্যের ব্যাপারে অনেকে অনেক রকম অনুমান এবং ব্যাখ্যা করেছেন| কেউ বলেছেন জাহাজটিকে একটি বিশাল অক্টোপাস হামলা করে এবং জাহাজের ক্ষতি না করে মানুষ খেয়ে ফেলে। কেউ অনুমান করেছেন নাবিকরা একটি দ্বীপে থেমে জাহাজটিকে ভেসে যেতে দিয়েছে। কিন্তু সবকিছু সত্ত্বেও মেরি সেলেস্টের রহস্য এখোন অজানা।

    অনুবাদক: লিয়ানা কিবরিয়া (৮ম শ্রেণী)

    ( মুল গল্প : The mystery of the Mary Celeste)

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    লাইবার আঁকা ছবি

    ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২০

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০