• শিরোনাম

    সরকারি প্রকল্পের কেনাকাটায় অস্বাভাবিক দাম নিয়ে ৬ নির্দেশনা

    দি গাংচিল ডেস্ক | ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০


    সরকারি প্রকল্পের কেনাকাটায় অস্বাভাবিক দাম নিয়ে ৬ নির্দেশনা

    সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিবদের সরকারি প্রকল্পের কেনাকাটায় ‘অস্বাভাবিক দাম’ নিয়ন্ত্রণে নির্দেশ দিলেন সরকার।

    সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে ‘মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোর বাজেটে বরাদ্দকৃত ব্যয়সীমার (সিলিং) মধ্যে প্রকল্প গ্রহণ’ শিরোনামে ৬টি নির্দেশনা পাঠানো হয়েছিলো। এরও পাশাপাশি মন্ত্রণালয়গুলোকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে সরকারি প্রকল্পের কেনাকাটায় ‘অস্বাভাবিক মূল্য’ যেন দেখানো না হয় সে ব্যপারে সজাগ থাকার জন্য।


    সরকারি প্রকল্পে বিভিন্ন সহজলভ্য পণ্যের অস্বাভাবিক দাম নির্ধারণ নিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে গণমাধ্যমের পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ নিয়ে সমালোচনা হওয়ায় কিছু প্রকল্প সংশোধনও করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সংশ্নিষ্ট কর্মকর্তারা। আর তাই এই চিঠির মাধ্যমে সরকারি কর্মকর্তাদের সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এরপরেও সরকারি কোনো প্রকল্পে যদি অস্বাভাবিক দাম নির্ধারণ করা হয় তবে সংশ্নিষ্টদের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর পদক্ষেপ নেবে।

    মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সেই চিঠিতে বলা হয়েছিলো, বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগ তাদের বিভিন্ন মধ্যমেয়াদী বাজেট কাঠামোর আওতায় সংশ্নিষ্ট অর্থবছরে প্রকল্প সমূহ সিলিং বহির্ভূতভাবে গ্রহণ করছে বলে লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ফলে সামঞ্জস্যতা থাকছে না সরকারের রাজস্ব আয়ের সঙ্গে চলমান প্রকল্পের বরাদ্দে। এছাড়াও সম্ভব হচ্ছে না সিলিং বহির্ভূত প্রকল্প গ্রহণ করার কারণে সকল প্রকল্পে প্রয়োজন অনুযায়ী বরাদ্দ প্রদান করা। সরকারের সুষ্ঠু আর্থিক ব্যবস্থাপনার সঙ্গে প্রক্ষেপণ ও প্রাক্কলনের বাইরে প্রকল্প গ্রহণ সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোকে ছয়টি বিষয়ে সজাগ থাকতে অনুরোধ জানিয়েছে।


    সরকার কর্তৃক নির্দেশনাগুলো হচ্ছে- মন্ত্রণালয় বা বিভাগগুলোকে প্রকল্প গ্রহণ করতে হবে তাদের মধ্যমেয়াদী বাজেট কাঠামো এর আওতায় প্রাক্কলন ও প্রক্ষেপণের অর্থবছরে বরাদ্দের সিলিংয়ের মধ্যে থেকে। আবশ্যিকভাবে যাচাই করতে হবে বিনিয়োগ প্রকল্পের ক্ষেত্রে ৫০ কোটির বেশি টাকার প্রকল্পের বাস্তবায়নের সম্ভাব্যতা সমূহ। প্রকল্প যাচাই-বাছাইয়ের ক্ষেত্রে অধিকতর সচেতনতা অবলম্বন করতে হবে, যাতে কোনো পণ্য বা দ্রব্যের অস্বাভাবিক মূল্য দেখানো না হয়। জিটুজি ভিত্তিতে গৃহীত প্রকল্পে সরকারি অর্থে রাখতে হবে পরামর্শক নিয়োগের জন্য ব্যবস্থা। অধিকতর সচেতনতা অবলম্বন করতে হবে প্রকল্প অনুমোদন বা বাছাইয়ের সময় বিষয়গুলোতে। জনগুরুত্বপূর্ণ ও রাষ্ট্রীয় বিশেষ প্রকল্পের ক্ষেত্রগুলোতে অতিরিক্ত অর্থের দরকার হলে আগেই অর্থ বিভাগের অনুমোদন নিতে হবে।

    Facebook Comments


    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    বিদায় ফুটবল ঈশ্বর!

    ২৫ নভেম্বর ২০২০

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১